আয় ঘুম শিশুর চোখের পাতায়

করেছে Rodoshee Magazine

রাত গভীর শিশুর চোখে ঘুম নেই, মা-বাবার কষ্টেরও শেষ নেই। অনেক মা-বাবার অভিযোগ,  সন্তানকে ঘুম পাড়ানো খুবই কঠিন। রাতে ঘুমায় না, দিনে ঘুমায় এই যখন অবস্থা মা-বাবাও জেগে থাকতে বাধ্য হোন।

কেন হয় এমন

মনোবিদদের মতে, ‘অনেক অভিভাবকই শিশুকে ঘুমের উপযুক্ত পরিবেশ দেন না। ঘরে চড়া আলো বা টিভি, সাউন্ড সিস্টেমের আওয়াজ তাদের ঘুমের দফারফা করে। শিশুও না ঘুমিয়ে সেসবে মন দিতে শুরু করে। কাজেই সন্তানকে ঘুম পাড়ানোর আগে তার ঘুমের পরিবেশ আনুন ঘরে।’

মনোবিদরা আরও মনে করেন, ‘ রাতে খাওয়া-দাওয়ার পর সন্তানকে ঘুম পাড়াতে গান বা গল্পের আশ্রয় নিন। গানের সুর, গল্পের গতি এসব শিশুর মস্তিষ্কের হাইপোথ্যালামাস ও থ্যালামাসকে প্রভাবিত করে। তাকে শান্ত করে। গান বা গল্প শুনতে শুনতে তাই ঘুমিয়ে পড়া অনেক শিশুরই অভ্যাস।’

আছে সহজ উপায়, শিশুর চোখে ঘুম আসবে

শিশুর ঘুমনোর একটা নির্দিষ্ট সময় ঠিক করবে।

নিজেদের যত কাজই থাক, শিশুর ঘুমের সেই সময়ের হেরফের করবে না।

এতে শিশুর দেহঘড়ি ঠক থাকবে। কিছু দিন অভ্যাসের পর ওই নির্দিষ্ট সময় মেনেই তার ঘুম আসবে।

সন্তানকে ঘুম পাড়াতে গিয়ে তুমি মোবাইল ঘাঁটতে শুরু করো কি?   এই অভ্যাসের ইতি টানো। অনেক বাবা-মা সন্তানকে রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে মোবাইলে গেম খেলতে দেন। জানো কী, এতে তার মস্তিষ্কের স্নায়ু উদ্দীপ্ত হয় এবং ঘুম বাধা পায়। ঘুমানের আগে শিশুর প্রিয় কোনো খেলনা দিতে পারো, তার সংস্পর্শে এসে শিশু ঘুমোয় অনেক তাড়াতাড়ি। মনোবিদদের মতে, শিশু ঘুমানোর সময় পছন্দের বস্তু পেলে তার গন্ধে, স্পর্শে শিশুর মস্তিষ্কে চাপমুক্তির হরমোন ক্ষরণ করে, শিশু দ্রুত ঘুমোয়।

 

রোদসী/আরএস

 

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

3 × five =