ইটিং শোঃ অসুস্থ এক প্রতিযোগিতা

করেছে Shaila Hasan

শায়লা জাহান

বেথানি গাস্কিন, যিনি ইউটিউবে ব্লভি নামে পরিচিত; হাসিমুখে ক্যামেরার সামনে বসে আছেন। সামনে রয়েছে বিশাল বিশাল কাঁকড়া, চিংড়ি সহ নানা মুখরোচক খাবার। তিনি খাবারগুলো সসে মজা করে খাচ্ছেন আর আর ভিউয়ারদের সাথে আড্ডা দিচ্ছেন। লাখ খানেক মানুষ তার আড্ডা ও খাওয়া একসাথে উপভোগ করছে। আর এতেই মাসে মাসে কোটি কোটি টাকা আয় হয় তার। শুধু ব্লভিই নয়, এমন আরো অনেকে আছে যারা ইন্টারনেটের সামনে এসে এভাবে খেয়ে বিনোদন দিয়ে থাকে। খাবারের এই অভিজ্ঞতা বিনিময়ের নাম ‘মুকবাং’।

দক্ষিন কোরিয়ায় এর প্রচলন শুরু হয়। মুকবাং শব্দটি কোরিয়ান শব্দ ‘মুক-জা’ (খাওয়া) এবং ‘বাং-সং’ (সম্প্রচার) এর সংমিশ্রনে গঠিত। এটি মূলত একটি অনলাইন অডিও ভিজুয়্যাল সম্প্রচার যেখানে হোস্ট প্রচুর পরিমানে  খাবার খাওয়ার সাথে সাথে দর্শকদের সাথে মতবিনিময় করতে পারে। ইন্টারনেট ভিত্তিক টিভি চ্যানেল আফ্রিকা টিভিতে প্রথম মুকবাং প্রচার করা হয়। ২০১০ সালে দক্ষিন কোরিয়ায় এটি বেশ জনপ্রিয়তা পায় এবং তখন থেকেই সারা বিশ্বে তা ট্রেন্ডে পরিনত হয়।

এসব ইটিং শো তে কিভাবে খাচ্ছে সেটার প্রদর্শন নিয়েই চলে রীতিমত এক অনুষ্ঠান। খাবারগুলো নানা মুখভঙ্গি করে, জোরে জোরে শব্দ তুলে, রসিয়ে রসিয়ে খাওয়া হয়। খাওয়ার প্রতিটা শব্দ যাতে ভালোভাবে শোনা যায়, কচকচ করে চিবানোর আওয়াজ যাতে কারো কান এড়িয়ে না যায় তার জন্য ব্যবহার করা হয় শক্তিশালী মাইক্রোফোনের।

দক্ষিন কোরিয়ার মুকবাং শিল্পীরা রীতিমত তারকা। তাদের আয় মাসে প্রায় ১০,০০০ ডলার। হামজি-হিউন, ইয়াংসুবিন, লিচ্যাং-হিউন এরা প্রত্যেকেই জনপ্রিয় মুকবাং ইউটিউবার। তাদের মেনুতে বেশিরভাগ সময়ই কোরিয়ার ঐতিহ্যবাহী খাবার থাকে। আবার কখনো থাকে মসলা মাখানো স্কুইড, অক্টোপাস জাতীয় সামুদ্রিক প্রানী।

বিদেশের গন্ডী পেরিয়ে আমাদের দেশ এবং পাশের দেশ ভারতেও এমন খাওয়ার প্রতিযোগিতা বেড়েই চলছে। দর্শকদের মতে, মজার এই খাবার ভিডিওগুলো মানুষের উদ্বেগ কিছুটা সময়ের জন্য কমায়। একাকিত্ব দূর করতেও এটা কাজে লাগছে। কিন্তু পুষ্টিবিদগণ চলমান এই ট্রেন্ডের সম্ভাব্য ঝুঁকি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। এইসব ভিডিও তে ভিউ পাবার জন্য বেশি পরিমানে খাওয়া হয়, যাতে স্থূলতা বৃদ্ধি পায়। শুধু তাই নয় এটি খাদ্যাভ্যাসেও নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। খাবারের মেনুতে বেশিরভাগই থাকে রামেন নুডুলস, ফ্রাইড চিকেন, পিজ্জা ইত্যাদি। বিনোদনের জন্য এই ধরনের খাবার বেশিমাত্রায় গ্রহনের ফলে ঘটে মারাত্মক স্বাস্থ্যহানি।

-ছবি সংগৃহীত

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

18 − 2 =