কালারের আগে চুলের যত্ন

করেছে Shaila Hasan

শায়লা জাহান

চুল ছোট হোক বা বড়, বিভিন্ন কালারের এক্সপেরিমেন্ট চলে এর উপর। পার্লারে এক্সপার্টদের দ্বারা সবসময় এই কালার করা হয়ে উঠেনা। আজকাল ঘরে বসেই সহজেই যে কেউই এই কাজ করে ফেলতে পারে। তবে চুলে কালার করার আগে কিছু স্টেপ আগে থেকেই ফলো করে নিলে ভালো হয়।

চুল তার কবেকার অন্ধকার বিদিশার নিশা- কবি জীবনানন্দ দাশের বনলতা সেনের সেই কালো চুল বর্তমানে তেমন দেখা না মেললেও বিভিন্ন কালারের চুলের আনাগোনা ভালোই লক্ষ্য করা যায়। চুল রঙ বা কালার করা ফ্যাশনের অন্যতম এক অনুষঙ্গ। অনেকে পাকা চুল ঢাকতেও কালার করে অনেকেই বা ট্রেন্ডি লুকের জন্য করে থাকে। ব্লন্ড থেকে প্ল্যাটিনাম, ঘরে বসে চুল রঙ করা সহজ হয়ে উঠেছে যা সময় ও অর্থ উভয়ই সাশ্রয় করে। ঘরে বসে কিছু নির্দেশিকা মেনে চললে পার্লারের মত মসৃণ ও চকচকে ফিনিশ পাওয়া যাবে।

কালারের আগে শ্যাম্পুকে না

কোন হেয়ার কালার ব্যবহারের আগে চুলে শ্যাম্পু করা এড়িয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। কারন শ্যাম্পু চুলকে কোনভাবেই হেয়ার ডাই থেকে রক্ষা বা উন্নত করতে সাহায্য করেনা। চুলে উপস্থিত প্রাকৃতিক তেলগুলো মাথার ত্বককে চুলকানি এবং চুলকানির সংবেদন থেকে রক্ষা করে যা চুলে কালার বা ব্লিচ ব্যবহারের জন্য সৃষ্ট হতে পারে।

প্যাচ টেস্ট করা

মাঝে মাঝে আমরা এমন কিছু কালার চুজ করি যা আমাদের ত্বকের সাথে তেমন সামঞ্জস্য হয়না, আর এতেই ঘটে বিপত্তির। তাই এই ব্যাপারগুলো এড়ানোর জন্য চুলের অল্প কিছু অংশ নিয়ে তাতে পছন্দ করা রঙয়ের প্যাচ টেস্ট করে নেয়া যেতে পারে। এতে বোঝা যাবে রঙ্গটি আমাদের স্কিনের কালারের জন্য বেশি গাঢ় না হালকা।

ত্বকের সংবেদনশীলতা

ত্বক শরীরের সবচেয়ে সংবেদনশীল অংশ এবং এই চুলের রঙয়ের রাসায়নিকগুলো এটিকে মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে। হাইড্রোজেন পার অক্সাইড দিয়ে রঞ্জক দ্রবণ অ্যামোনিয়ার পিএইচ স্তরকে নিরপেক্ষ করতে পারে, শুকানোর প্রভাবগুলো হ্রাস করতে পারে এবং ত্বকের জ্বালা কমাতে পারে। তাই নির্দেশনাবলি গুলো ভালো করে পড়ে পরিমান মত পার অক্সাইড যোগ করতে হবে। এতে রঙয়ের অত্যধিক প্রভাব কমিয়ে আনা যেতে পারে।

অযথা পাতলা না করা

একটি স্থায়ী ডাই পানি দিয়ে অযথা পাতলা করা থেকে বিরত থাকতে হবে। এতে চুল হালকা করবে না। আবার চুলের রক্ষার জন্য এতে অপ্রয়োজনীয়ভাবে কোন প্রকার তেল বা হেয়ার ট্রিটমেন্টের পন্য মেশানো ঠিক না। এতে কাজের কিছুই হয়না শুধুমাত্র তাদের গ্রেসি করে তোলে।

হেয়ারলাইনে পেট্রোলিয়াম জেলি ব্যবহার

রঙ অ্যাপ্লাই করার আগে হেয়ারলাইনে পেট্রোলিয়াম জেলির একটি পাতলা আবরন লাগিয়ে নেয়া যায়। জেলি রঙয়ের দাগ দূর করবে এবং তা মুখের ত্বকে পৌঁছাতে দিবে না। এটি ত্বকের যে কোন জ্বালাপোড়া বা চুলকানির প্রবণতা কমাতে সাহায্য করবে।

চুল ময়েশ্চারাইজড রাখা

চুলে কালার করানোর আগে থেকেই যতটা সম্ভব তা স্বাস্থ্যকর ও ময়েশ্চারাইজড রাখার চেষ্টা করতে হবে। কমপক্ষে ৩-৪ সপ্তাহ আগে থেকে চুলে কোন প্রকার ক্যামিকেল ট্রিটমেন্ট করান উচিৎ হবেনা।

-ছবি সংগৃহীত

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

13 + 8 =