ঘরের দায়িত্ব আছে স্বামীদেরও

করেছে Suraiya Naznin

রোদসী ডেস্ক:
স্বামীরা যদি ‘সাপোর্টিভ হাজ়ব্যান্ড’ হন, তাহলে অনেকেই ভাবেন তাঁরা বড্ড বেশি স্ত্রী-ন্যাওটা! স্বামীরা যদি সংসারের কাজ ভাগ করে নেন বা স্ত্রীর পাশে দাঁড়ান, তাহলে তিনি মোটেও ‘জরু কা গুলাম’ নন। বরং, এটাই তো হওয়া উচিত।

ছুটির দিনে মাঝেমধ্যে রান্নাঘরে ঢুকে পড়েন স্বামী। অন্যভস্ত হাতেই বানানোর চেষ্টা করেন মাছের কালিয়া বা খিচুড়ি। অফিস থেকে ফিরতে তোমার দেরি হলে তিনি মাঝেমধ্যেই বাড়ির ‘গৃহকর্ত্রী’ হয়ে ওঠেন! হ্যাঁ, বলছি তোমার স্বামীর কথা। ছেলেরা ‘বাইরে’ কাজ করবে আর মেয়েরা ‘ঘরে’, এ ধারণা আগেই আমরা অনেকটা ভাঙতে পেরেছি। কিন্তু স্বামী যদি বাড়ির কাজে পুরোদমে সাহায্য করেন, তাহলে এখনও তাঁকে বক্রোক্তি শুনতে হয়।

 

নারীরা সংসার আর অফিস একসঙ্গে সামলালেও যেমন অনেকাংশে তাঁদের প্রাপ্য প্রশংসা পান না, তেমনই স্বামীরা যদি ‘সাপোর্টিভ হাজ়ব্যান্ড’ হন, তাহলে অনেকেই ভাবেন তাঁরা বড্ড বেশি স্ত্রী-ন্যাওটা! স্বামীরা যদি সংসারের কাজ ভাগ করে নেন বা স্ত্রীর পাশে দাঁড়ান, তাহলে তিনি মোটেও ‘জরু কা গুলাম’ নন। বরং, এটাই তো হওয়া উচিত। ভাবুন তো, একজন হোমমেকার পরিবারের সকলের জন্য রান্না করা থেকে শুরু করে বাড়ির যাবতীয় কাজ করেন, আবার বাচ্চাদের পড়াশোনা-হোমওয়র্কের দায়িত্বও তাঁর।

একা কাঁধে এত দায়িত্ব নেওয়া কী মুখের কথা! আবার যাঁরা চাকরি করেন, তাঁরা তো সংসার-সন্তান-চাকরি সামলে নিজেদের জন্য সময়ই পান না! এরপরেও কি সংসারিক দায়িত্বের যৌথতার প্রয়োজন নেই? যদিও এখন সময় বদলাচ্ছে অনেকটাই। বর্তমান প্রজন্মের নারীরা যেমন বিয়ের আগে ‘সাপোর্টিভ’ হাজ়ব্যান্ড চাইছেন, ছেলেরাও তেমনই বাড়ির কাজে হাত লাগাতে প্রস্তুত। ভালবাসা বা পারস্পরিক শ্রদ্ধার জায়গাটা ততক্ষণ নড়বড়ে, যতক্ষণ না দু’জনেই সমান-সমান অধিকার পাচ্ছেন। আর এই ‘ইকুয়ালিটি’-ই বেশিরভাগ সফল বিয়ের জরুরি ভিত তৈরি করে দেয়। আপনি কতটা কাজ করলেন বা স্বামী কতটা অলসভাবে দিনযাপন করলেন, সেই তর্কে গিয়ে কী লাভ!

 

দাম্পত্য সম্পর্ক তো আর কোনও প্রতিযোগিতা নয়। বরং, একে অপরের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলাই দাম্পত্যের মূল সুর। স্ত্রীর বিজ়নেস ট্রিপ আছে, আপনিই না হয় বাচ্চার ন্যাপি চেঞ্জ করলেন। আবার স্বামীর অফিসে জরুরি মিটিং আছে বলে আপনিই না হয় দ্রত ব্রেকফাস্ট বানিয়ে দিলেন। এরকম পারস্পরিক সহযোগিতাই প্রয়োজন। হ্যাঁ, সবাই সব কাজে দক্ষ হবেন এমনটা নয়। আপনি যত ভাল রান্না করতে পারেন, আপনার সঙ্গী হয়তো অতটা ভাল পারেন না। কিন্তু তিনি যে আপনাকে সাহায্য করার চেষ্টা করছেন, এটাই তো কুর্নিশযোগ্য।

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

fourteen + ten =