নারী জন্মদাত্রী, তাই মাতৃত্ব নারী জীবনের অন্যতম সেরা একটি অর্জন

করেছে Rodoshee

আজকের পৃথিবীটা এই যে এতো সুজলা-সুফলা সুন্দর; এর পেছনে নারীর অবদান সবচেয়ে বেশি। নারী মাসের পর মাস কষ্ট করে গর্ভধারণ করে বলেই পৃথিবীটা এখনও মানুষের জন্য উর্বর। আজও পৃথিবীতে ফুল ফোটে, পাখি গান গায় মানুষ আছে বলেই। নারী জন্মদাত্রী, তাই মাতৃত্ব নারী জীবনের অন্যতম সেরা একটি অর্জন। কিন্তু সে অর্জনের পথ অতোটা সহজ-সোজা নয় কখনোই।
মাতৃত্বের জন্য অনেক সময় নারীকে দিতে হয় কঠিন পরীক্ষা। অনেক অসুখ-বিসুখও মাতৃত্বের পথ আগলে দাঁড়ায়। যেমন লুপাস রোগটি। ডাক্তারদের মতে লুপাস নাকি একটা রহস্যময়ী রোগ। সাধারণত কম বয়সী মেয়েদের ক্ষেত্রে এই রোগ যতটা প্রভাব ফেলে, প্রেগন্যান্ট মহিলাদের ওপর এটি আরও ভয়াবহ। লুপাস অ্যান্টিকোগুলান্টের উপস্থিতি কোনো মায়ের শরীরে থাকলে তার শরীরের অভ্যন্তরভাগে রক্তপ্রবাহ কমে যায় বা কোথাও কোথাও রক্ত জমাট বেঁধে যায়। রক্ত প্রবাহিত হয়ে গর্ভের শিশুর কাছে পৌঁছাতে পারে না। ফলে অবধারিতভাবে প্রতিবন্ধতা সৃষ্টি হয় মাতৃত্বের স্বাদ নিতে।
পরিসংখ্যান বলছে, বিশ্বের ৫০ লাখ অভাগা লুপাস রোগী। এ রোগ প্রতি এক লাখে ২০ থেকে ১৫০ জনের হতে পারে। শতকরা ৯০ ভাগ লুপাস রোগী কম বয়সী মহিলা। শতকরা ৬৫ ভাগ রোগীর বয়স ১৬ থেকে ৫৫-এর মধ্যে, শতকরা ২০ ভাগ ১৬ বছরে নিচে এবং শতকরা ১৫ ভাগ ৫৫ বছরের বেশি। আর ছেলেদের এই রোগের প্রকোপ মেয়েদের চেয়ে অনেক কম।
বিষয়টির গুরুত্ব বিবেচনা করে রোদসী’র এবারের সংখ্যার প্রচ্ছদ প্রতিবেদন করা হয় এ বিষয়ে। আমরা বিশ্বাস করি, সচেতনতাই অনেক রোগ প্রতিরোধ করতে পারে। আশা করি আমাদের আয়োজন তোমাদের ভালো লাগবে।
সবার জন্য শুভকামনা।

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

fourteen − eight =