প্রবীণ হিতৈষী সংঘে রিসাইকেল বিনের জন্মবার্ষিকী পালন

করেছে Suraiya Naznin

রোদসী ডেস্ক: শুরু থেকেই রিসাইকেল বিনের চিন্তার জায়গাটি একটু অন্যরকম। রিসাইকেল বিনের প্রথম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে নেয়া হয়েছে তেমনই এক ব্যতিক্রমী উদ্যোগ।

দেশের সাড়া জাগানো ভার্চুয়াল হাট রিসাইকেল বিনের প্রথম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আগারগাঁও প্রবীণ নিবাসে যেন প্রাণের মেলা বসেছিল। ব্যতিক্রমী এই অনুষ্ঠানে প্রবীণরা কয়েক ঘন্টার জন্য তাদের পরিবারকেই যেন কাছে পেয়েছিলেন।

প্রতিষ্ঠার শুরু থেকেই ব্যতিক্রমী সব পদক্ষেপ, মানুষের প্রয়োজনে পাশে থাকা, দাতা-গ্রহীতা নয় সাধ্য অনুযায়ী বিনিময় প্রথার প্রচলন করে লাখো হৃদয়ে জায়গা করে নেয় রিসাইকেল বিন। সহযোগী মনোভাব নিয়ে যাত্রা শুরু করে এই গ্রুপের বর্তমান সদস্য প্রায় ১২ লাখ।

 

রিসাইকেল বিনের জন্মবার্ষিকীতে ‘আসুন মায়া ছড়াই’ শিরোনামের এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রিসাইকেল বিন এর এডমিন প্যানেল, বেশ কিছু সমাজসেবী, সেচ্ছাসেবক, সংবাদকর্মী, মিডিয়াকর্মী ও বেশ ক’জন আলোচিত ও পরিচিতমুখ।

দিনব্যাপী এই কার্যক্রমে ছিল নবীনদের পরিচিতি পর্ব ও আলোচনা সভা।এছাড়া বরেণ্য সাইকিয়াট্রিস্ট এর মাধ্যমে মানসিক স্বাস্থ্য উন্নয়ন বিষয়ক কাউন্সিলিং, প্রবীনদের অভিজ্ঞতা বর্ননা, কেক কাটা, ক্রিয়া অনুষ্ঠান, পুরনো দিনের গান, বাউলগান এবং ম্যাজিক শো।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ প্রবীণ হিতৈষী সংঘ ও জরা বিজ্ঞান প্রতিষ্ঠান এর সভাপতি ও ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আব্দুল মান্নান তার প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে রিসাইকেল বিনকে শুভকামনা জানিয়ে বলেন,”নবীন প্রবীণ সম্পর্ক আরো জোরদার করতে এধরণের ব্যাতিক্রমী পদক্ষেপ আরো দরকার। বর্তমান সরকার প্রবীণদের কল্যাণে অনেক কিছু করেছে তবে যতদিন যুবসমাজের সাথে সম্পর্ক দৃঢ় না হবে ততদিন বৃদ্ধাশ্রমের প্রয়োজনীয়তা আরো বাড়বে।”

রিসাইকেল বিন এর প্রতিষ্ঠাতা ও এডমিন ফ্লোরিডা শারমিন ও মাসুম আব্দুল্লাহ নবীনদের পক্ষ থেকে সমাজের প্রত্যেক স্তরে আবেগ-অনুভূতি-মায়া ছড়ানোর কার্যক্রমে নেতৃত্ব দেয়ার অঙ্গীকার করেন।

অনুষ্ঠানে এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ই-কুরিয়ার এর সিইও বিপ্লব জি রাহুল ও বিভিন্ন বরেণ্য সব স্টার্টআপের সত্ত্বাধিকারীরা। প্রত্যেক নিবাসী প্রবীণের জন্য নকশিকাঁথা, রকমারি ফল, স্যানিটাইজার ও মাস্ক উপহার দেয়া হয় গ্ৰুপের পক্ষ থেকে।এছাড়াও ছবি আঁকা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীরা পান ক্যানভাস, তুলি ও ছবি আঁকার বিভিন্ন উপকরণ।

 

ম্যাজিক শো ও গানের আয়োজনে মন খুলে অংশ নিতে দেখা যায় প্রবীণদের। উৎসবের আমেজ ছড়িয়ে দিতে গ্ৰুপটির এডমিন প্যানেলের সদস্যরা প্রত্যেক নারী নিবাসীকে হাতে মেহেদী পরিয়ে দেন এছাড়াও নিবাসী প্রবীণদের সময় কাটানোর জন্য কয়েক সেট দাবা ও লুডু খেলার বোর্ড, গরম পানি ও চা বানানোর জন্য ইলেকট্রিক কেটলি উপহার দেয়া হয়।

অনুষ্ঠান শেষে প্রবীণ নিবাসি রামিসা খাতুন (ছদ্দনাম) বলেন, আমি এই প্রবীণ নিবাসে ৮ বছর ধরে আছি। আমাদের প্রত্যেকটি দিনই এক রকম বর্ণহীন। ছেলেমেয়েগুলোকে কাছে পেয়ে অনেকদিন পর প্রানখুলে হেসেছি, গেয়েছি এবং মেহেদী উৎসব করেছি। সাংকৃতিক অনুষ্ঠানের শেষদিকে অনেক নিবাসী প্রবীণদেরকে অতিথিদের সাথে গানের তালে তালে নাচতে দেখা গিয়েছে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত প্রত্যেক প্রবীণ আয়োজকদের ধন্যবাদ দেন ও দোয়া করেন এবং মাঝে মধ্যেই দেখতে আসার আকুতি জানান।

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

one × four =