প্রসঙ্গ আইল্যাশ এক্সটেনশন

করেছে Shaila Hasan

শায়লা জাহানঃ

‘‘মুখ হল মনের ছবি এবং চোখ তার দোভাষী’’। চোখের সাজের বড় একটা অংশ জুড়ে থাকে আইল্যাশ। চোখ আকারে বড় হোক বা ছোট, কালো এবং ঘন চোখের ল্যাশ নারীর চোখকে আরও সুন্দর ও আবেদনময়ী করে তোলে। বারবার মাস্কারা লাগানো এবং নকল ল্যাশের ঝামেলা এড়াতে আজকাল আইল্যাশ এক্সটেনশন বিউটি ট্রিটমেন্ট হিসেবে খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। আজ এই ল্যাশ এক্সটেনশনের খুঁটিনাটি ব্যাপারে জানবো।

আধা-স্থায়ী আইল্যাশ এক্সটেনশনগুলো তোমার চোখের ল্যাশের চেহারা উন্নত করার সবচেয়ে নাটকীয় উপায়। এটি হল কসমেটিক অ্যাপ্লিকেশন যা ল্যাশ লিফট বা ল্যাশ টিন্টের বিপরীতে চোখের ল্যাশের দৈর্ঘ্য, কার্ল, পূর্ণতা এবং পুরুত্ব বাড়ায়। মিল্ক, সিল্ক, সিন্থেটিক, মানব বা ঘোড়ার চুল সহ বিভিন্ন উপকরণ থেকে এক্সটেনশন তৈরি করা যেতে পারে। মাস্কারার প্রয়োজনীয়তা দূর করে, আইল্যাশ এক্সটেনশনগুলি চেহারায় তাৎক্ষণিক সতেজতা প্রদান করে এবং মেকাআপের প্রয়োজনীয়তা অনেকাংশে কমিয়ে দেয়। এখন মনে প্রশ্ন জাগতেই পারে যে, এগুলোকে কি ন্যাচারাল লুক দিবে? এক্সটেনশনের ফাইনাল লুকে তোমার ন্যাচারাল যে ল্যাশ আছে তার দৈর্ঘ্য, পূর্নতা এবং উত্তোলনের সঙ্গে এর উন্নত করার সম্পর্ক জড়িত। সেই লুকটি তোমার ন্যাচারাল হবে না আরও ড্রামাটিক হবে তা মূলত নির্ভর করে ক্লায়েন্টের উপর। যত বেশি ল্যাশ এপ্লাই করা হবে, বিষয়টি তত ড্রামাটিক হবে। সাধারণত এতে প্রতি চোখে ৮০-১৪০ টি পৃথক এক্সটেনশন অন্তর্ভূক্ত থাকে, যার দৈর্ঘ্য ৬-১৮ মিমি পর্যন্ত হয়।

আইল্যাশ এক্সটেনশন ধরণ

আইল্যাশ এক্সটেনশন এতো জনপ্রিয় হওয়ার কারণ হল সেগুলো সম্পূর্নরুপে কাস্টমাইজযোগ্য। ন্যাচারাল থেকে ড্রামাটিক, বিভিন্ন লুক আনয়নে সামর্থ্য এই এক্সটেনশনের মোটামুটি ৪টি স্টাইল বা ধরণ রয়েছেঃ ক্লাসিক, ভলিউম, হাইব্রিড এবং উইস্পি।

ক্ল্যাসিক

ক্ল্যাসিক আইল্যাশ এক্সটেনশগুলো হল ১টির উপর ১টি আইল্যাশ এক্সটেনশন। এর মানে হল একটি প্রাকৃতিক ল্যাশে একটি পৃথক এক্সটেনশন প্রয়োগ করা হয়। এগুলো সাধারণত খুব স্বাভাবিক দেখায়। এবং এমন লোকদের জন্য জনপ্রিয় যারা তাদের ন্যাচারাল ল্যাশগুলো স্বাভাবিক চেহারা বজায় রেখে শুধুমাত্র লম্বা এবং ঘন করে দেখাতে চায়।

ভলিউম

ভলিউম আইল্যাশ এক্সটেনশন প্রাকৃতিক চেহারা থেকে পরিবর্তিত হয় যা ভলিউমের চেয়ে বেশি দৈর্ঘ্য যোগ করে। এতে একটি পূর্ণ, ঘন ল্যাশ লুক দেয়। ল্যাশের রেঞ্জ ২ডি-৬ডি, মানে ১টি আসল ল্যাশের সাথে ২টি থেকে ৬টি এক্সটেনশন যোগ করা হয়। ভলিউম ল্যাশগুলো সুপার লাইটওয়েটের হয়ে থাকে। আরও ড্রামাটিক লুক ক্রিয়েটের জন্য অনেকেই মেগা-ভলিউম স্টাইল বেছে নেয়।

হাইব্রিড

হাইব্রিড ল্যাশে ক্ল্যাসিক এবং ভলিউমের মিক্সড থাকে। এর মানে হল কিছু ল্যাশে ক্ল্যাসিক প্রয়োগ করা হয়, অন্যগুলোতে ভলিউম। এটি তাদের ক্ল্যাসিকের চেয়ে বেশি নাটকীয় এবং ঘন দেখায়, অবে ভলিউম ল্যাশের মতো অতটা নয়।

উইস্পি

এই স্টাইলেও বিভিন্ন দৈর্ঘ্যের ক্ল্যাসিক এবং ভলিউম ল্যাশগুলোকে একত্রিত করে। এটি তাদের একটু অসমমিত কিন্তু আরও প্রাকৃতিক দেখায়।

ল্যাশ এক্সটেনশনের পরের যত্ন

আইল্যাশ এক্সটেনশন একটি উচ্চ রক্ষণাবেক্ষণ সৌন্দর্য চিকিৎসা। ল্যাশ দীর্ঘস্থায়ী হওয়ার জন্য এবং ভাল অবস্থায় থাকার জন্য তাদের কিছু যত্নের প্রয়োজন।

-এক্সটেনশনের পরে অন্তত ৬ ঘন্টার মধ্যে চোখে পানি লাগানো ঠিক নয়

-অযথাই চোখের ল্যাশ এক্সটেনশন ঘষা বা টানা ঠিক না

-চোখের এলাকা এড়িয়ে একটি ওয়াশক্লথ ব্যবহার করে সিঙ্কে মুখ ধুতে পারো

-সমস্ত তেল ভিত্তিক প্রোডাক্ট চোখ থাকে দূরে রাখো

-তেল ল্যাশের আঠালো ভাব ভাঙবে এবং অকালে ল্যাশ এক্সটেনশনের ক্ষতি করবে।

-কৃত্রিম আইল্যাশ লাগালে মাস্কারা ব্যবহারের প্রয়োজন পড়েনা। আই মেকআপ যতটা সম্ভব মিনিমাল করা যায়, তত ভালো

-রান্নার সময় চুলার দিকে বেশি ঝুঁকে কাজ করবেনা। কিছু রাখার সময় বা বসানোর জন্য চুলা থেকে মাথা সরিয়ে নাও

-আইল্যাশ কার্লার ব্যবহার করার প্রয়োজন নেই

-প্রতিদিন ল্যাশ ব্রাশ করো

-ছবি সংগৃহীত

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

ten − ten =