বিয়ের প্রস্তুতি

করেছে Sabiha Zaman

বিয়ের মতো বিশেষ মুহূর্তে বর-কনের দিকেই সবার নজর থাকে। আর তাই এ সময়ে সবচেয়ে আকর্ষণীয় এবং সুন্দর দেখাতে চাই বিয়ের আগে থেকেই বিশেষ পরিচর্যা।

বর্তমান বিয়েগুলোতে এর আয়োজনের অধিকাংশ চাপই এসে পড়ে বর-কনের ওপর। বিয়ের শপিং, অনুষ্ঠান আয়োজন, প্ল্যানিং ছাড়াও নতুন জীবনে প্রবেশের ভয়ভীতিসহ নানা চিন্তা এসে মাথায় ভর করে। তাই সব মিলিয়ে উভয়ের চোখেমুখেই থাকে ক্লান্তির ছাপ। মুখ ও শরীরের ত্বকে দেখা দেয় নানা সমস্যা। তাই সবকিছুর মধ্যেই নিজেকে সম্পূর্ণ স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করতে হবে। নিয়মিত ত্বকের যত্নের পাশাপাশি বিয়ের অন্তত এক মাস আগে থেকেই এর জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে। প্রয়োজনে ভালো কোনো বিউটি স্যালনে গিয়ে ঠিক করে নিতে হবে গ্রুম শিডিউল।

বিয়ের আগে প্রস্তুতি হিসেবে ঘরে বসেই নিয়মিত কিছু যত্ন নেওয়া যেতে পারে :

ত্বকের যত্ন 

  •  ত্বক সতেজ ও সুন্দর রাখতে হলে আর্দ্রতা রক্ষা করতে হয়। বিয়ের আগে শরীর এবং ত্বকের সুস্থতায় প্রতিদিন যত বেশি সম্ভব পানি পান করো ও ফল খাও।
  • ক্লিনজার দিয়ে দিনে দুবার মুখ ধুতে হবে। এরপর মুখ শুকিয়ে এলে আবার টোনার দিয়ে মুখ মুছে নাও। এরপর তোমার ত্বকের জন্য উপযুক্ত ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিও।
  •  ত্বকের মরা কোষ ঝরানোর জন্য ২ টেবিল চামচ ওটমিল ও অ্যালোভেরার জেল, ২ চা-চামচ চিনি এবং ১ চা-চামচ লেবুর রস একসঙ্গে মিলিয়ে ত্বকে ব্যবহার করে তিন মিনিট পর ভেজা ও নরম হাতে ম্যাসাজ করে হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে নাও। এভাবে প্রতি সপ্তাহে একবার মরা চামড়ার কোষ ঝরানো যেতে পারে।


চুলের যত্ন
প্রতিদিন একটি করে ডিম মাথার ত্বক ও চুলে ম্যাসাজ করে ২০ মিনিট পর ধুয়ে নিতে পারো। অথবা তিনটি অ্যালোভেরার পাতা থেকে ভালো করে জেল বের করে নিয়ে মধু মিশিয়ে মাথার ত্বকে লাগিয়ে ২০ মিনিট রেখে ধুয়ে নাও। সপ্তাহে একবার করে তিন মাস এভাবে পরিচর্যা করতে থাকো।
সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিন নারকেলের দুধ, পাতিলেবুর রস ও নিমপাতা বাটা মিশিয়ে প্যাক বানিয়ে চুলে লাগিয়ে রাখো। এক ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করে ফেলো। শেষে দুধ ও মধুর মিশ্রণ দিয়ে চুল ধুয়ে নাও।
চুলের রুক্ষতা দূর করতে সপ্তাহে তিন দিন চুলে তেল লাগিয়ে এ প্যাকটি ব্যবহার করো। এক চামচ নারকেল তেল, এক চামচ ক্যাস্টর অয়েল, এক চামচ ভিনেগার, এক চামচ শ্যাম্পু, একটা পাকা কলা ও এক চামচ মধু মিশিয়ে প্যাক বানিয়ে চুলে লাগিয়ে রাখো ৪০ মিনিট। এরপর পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলো।

পেডিকিওর-মেনিকিওর
হাত-পায়ের নখগুলো পছন্দমতো শেপে কেটে নখে ক্রিম লাগিয়ে নাও। একটি পাত্রে গরম পানিতে শ্যাম্পু, লবণ ও লেবুর রস মিশিয়ে তাতে হাত-পা ১০ মিনিট ডুবিয়ে রাখো। তারপর তোয়ালে দিয়ে হাত ও পা মুছে নাও।

আরও কিছু টুকিটাকি

  • নিজেকে রিল্যাক্স রাখতে ভালো কোনো স্পা থেকে বডি ম্যাসাজ বা অ্যারোমা থেরাপি নিয়ে নিতে পারো।
  • মনের চাপ কমাতে বিয়ের আগে থেকে বিভিন্ন রকম এক্সারসাইজ করতে পারো।
  • বিয়ের আগের দিন হাতে মেহেদি লাগাও। বিয়ের সাজের দিন পারলারে যাওয়ার আগে ফুল কিনে রাখো।
  • শাড়ি, গহনা, জুতাসহ সব জিনিস সঙ্গে নিয়ে নাও।

মানসিক প্রস্তুতি
বিয়ের পর অনেক দায়িত্ব বেড়ে যায়। তাই বিয়ের আগে থেকে বাস্তবতার দিকেও নজর দিতে হবে। মা কিংবা কাছের অভিজ্ঞ কেউ কনেকে ইতিবাচকভাবে জীবনের বাস্তবতা বুঝিয়ে বলতে পারো। ছেলেমেয়ে দুজনকেই পরস্পরের পরিবারের সঙ্গে মানিয়ে চলার মানসিকতা থাকতে হবে। তা হলে দাম্পত্যজীবনে অনেক সমস্যা এড়িয়ে চলা সম্ভব। নিজের, পরিবার ও সমাজের প্রতি দায়িত্ববান হতে হবে। নিজের স্বভাবের কোনো নেতিবাচক দিক থাকলে সেগুলো সংশোধনের চেষ্টা করতে হবে। নিজেদের সব দিক বিয়ের আগে পারস্পরিকভাবে আলোচনা করলে বোঝাপড়ার শুরুটা ভালো হবে। প্রতিটি পরিবারের আলাদা নিয়মকানুন, আচার-ব্যবহার থাকে। সেসব আগে থেকে জেনে নিতে পারলে পরে নতুন সদস্যের বুঝতে সহজ হয়। এসব ক্ষেত্রে শুধু মেয়েরাই মানিয়ে চলবে তা নয়, ছেলের পরিবারকেও  এ বিষয়ে বড় ভ‚মিকা পালন করতে হবে।

শাশুড়ি নিয়ে অনেক মেয়ের মনে চিন্তা থাকে। বিয়ের আগে সুযোগ থাকলে মেয়ের সঙ্গে ছেলের পরিবার কথা বলে নিতে পারে। তবে শুরুতেই মেয়েকে নেতিবাচক কোনো বিষয় বলা উচিত নয়। বিয়ের আগে এবং পরে আমাদের জীবনে বেশ বড় পরিবর্তন হয়। তাই এ সময়টি পরিবারের সবার সঙ্গে উপভোগ করো। সব মিলিয়ে বিয়ের আগের সময়টাতে মানসিক চাপমুক্ত থাকার চেষ্টা করো।

লেখা: রোদসী ডেস্ক

ছবি: ওমর ফারুক টিটু

 

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

5 × 3 =