বয়সের আগেই বলিরেখা নয়

করেছে Tania Akter

রোদসী ডেস্ক

বয়স বাড়লে বদলায় ত্বক। বলিরেখা পড়ে।  বুড়িয়ে যাওয়ার ছাপ স্পষ্ট হয়। বয়সের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ে বলিরেখা। তবে কখনো কখনো বয়সের আগেই পড়ে বলিরেখা। জীবনের এই বদলের হাওয়ায় বলিরেখা থেকে বাঁচতে নিতে হবে যত্ন। মুখের ত্বকে কিংবা ঠোঁটের কোণে ভাঁজ পড়তে দেয়া যাবে না কোনভাবেই। বদলাতে হবে খাদ্যভাস। ত্বকের সঙ্গে খাবারের বেশ যোগ রয়েছে। ঘুম এবং নিয়মিত শরীরচর্চায়ও মুক্তি মিলবে বলিরেখা থেকে।

 

রূপবিশেষজ্ঞদের মতে,  কোলাজেন নামে একটি প্রোটিন ত্বক টানটান রাখে। বয়স বাড়লে এর পরিমান কমে ত্বকে ভাঁজ পড়তে শুরু হয়। সাধারণত বয়স ত্রিশের পর থেকে ত্বকে বলিরেখার সংখ্যা বাড়লেও যাদের শুষ্ক ত্বক, দিনের বেশিরভাগ সময় রোদে পুড়ে, নিন্মমানের প্রসাধনীর ব্যবহার এসব ত্বকের আদ্রতা কমিয়ে দিয়ে বয়সের আগেই বলিরেখা দেখা দেয়। শরীরের একেক অংশের ত্বক একেক রকম হলেও মুখের ত্বক খুব সংবেদনশীর হওয়ায় খাবারের পাশাপাশি করতে হবে ত্বকের পরিচর্চা।

 

 

সুঅভ্যাস গঠন

ত্বক পরিচর্চা ও খাবারের পাশাপাশি ভালো অভ্যাস গঠন করতে হবে। ভাজাপোড়া এড়িয়ে চলতে হবে। চেহারা কুচকে না রেখে স্বাভাবিক ভঙ্গিতে রাখতে হবে।

বাইরে গেলে ত্বক ধুলোময়লা থেকে এড়াতে মাস্ক পড়তে হবে আর রোদে গেলে ব্যবহার করতে হবে সানস্ক্রিন। অ্যালকোহল, সিগারেট ও সোডা পরিত্যাগ করতে হবে। কারণ এগুলো ত্বকের আর্দ্রতা শুষে নেয়।  পরিমিত পানি পান করতে হবে।

 

ভালোমানের প্রসাধনী ব্যবহার করতে হবে। এছাড়া চড়া মেকআপের ব্যবহার কমিয়ে দিতে হবে। এর ক্ষতিকর রাসায়নিক উপাদান ত্বক শুষ্ক কওে যা সূক্ষ্ম বলিরেখার জন্য দায়ী। থাকতে হবে চিন্তামুক্ত। পর্যাপ্ত ঘুমাতে হবে। বালিশের প্রতি নজড় দিতে হবে যাতে মুখের ত্বকে চেপে দাগ না পড়ে।

 

নিয়মিত পরিচর্চা

বয়সের আগেই বলিরেখা থেকে বাঁচতে ত্বকে পরিচর্চা করতে হবে নিয়মিত। আর এই প্রতিদিনের ত্বকচর্চার উপাদান রয়েছে ঘরেই।

ডিম ও লেবু হতে পারে উত্তম সমাধান। কারণ ডিমে থাকা প্রোটিন ত্বকে টান টান ভাব আনে এবং লেবুর রস ত্বকের ছোপ দাগ কমায়। তাই ডিমের সাদা অংশ লেবুর রসে মিশিয়ে ত্বকে আধঘন্টা রেখে ধুয়ে নিতে হবে।

জলপাইয়ের তেল ত্বক প্রাকৃতিকভাবে আর্দ্র রাখতে সহায়তা করে। তাই নিয়মিত অলিভ ওয়েল বা জলপাই তেল মুখে রাখিয়ে রাখা ভালো।

কলায় পটাশিয়াম, জিঙ্ক, ভিটামিন এ, বি, সি ও ই থাকায় বলিরেখা দূর করতে সাহায্য করে। আর  চিনি মৃত ও শুষ্ক কোষ দূর করে। তাই কলা আর চিনি চটকে নিয়ে মুখে লাগিয়ে কিছুক্ষণ রেখে ধুয়ে নিলেও উপকার পাওয়া যায়।

মধু ত্বকের লোমকূপে জমে থাকা ময়লা দূও করতে সহায়তা করে। তাই মুখে মধু লাগিয়ে মিনিট দশেক রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে।

 

খাদ্যাভাসের বদল চাই

ত্বকে বয়সের আগে বলিরেখা না চাইলে অবশ্যই খাদ্যভাসের বদল আনতে হবে। কোলাজেন তৈরি করে এমন খাবার খেতে হবে।

প্রতিদিন  গোটা কয়েক বাদাম রাখতে হবে খাদ্যতালিকায়। সেটা হতে পারে পাস্তাবাদাম, চীনাবাদাম, কাঠবাদাম। কারণ বাদামে থাকা ভিটামিন কোলাজেন তৈরি করে।

সবুজ শাকসবজি কোলাজেন তৈরির অন্যতম উপাদান। কারণ ভিটামিনের পাশাপাশি রয়েছে প্রচুর খনিজ উপাদান।

টমেটো সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি ত্বকের কোলাজেন ভেঙে দেয়। কারণ প্রচুর লাইকোপিন থাকে টমেটোতে। তাই টমেটোর চাটনি, সালাদ কিংবা তরকারি রেধেঁ খেলে উপকার পাওয়া যায়।

গাজরে প্রচুর ভিটামিন থাকায় ক্ষতিগ্রস্ত ত্বকেও কোলাজেন পুনরুৎপাদন করে। তাই খাবারের সঙ্গে কয়েকটা গাজরের টুকরো রেখে খাওয়ার অভ্যাস করতে হবে।

ছবি: ইন্টারনেট

 

 

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

1 + 17 =