মনের প্রশান্তি দিবে ভার্টিকেল গার্ডেন

করেছে Shaila Hasan

শায়লা জাহান

 

তুমি কি জানো যে খুব সহজেই ব্যালকনিতে একটি ভার্টিকেল বা উলম্ব বাগান তৈরি করতে পারো? এমন একটি বাগান করার জন্য অনেক বড় বারান্দা বা স্থানের প্রয়োজন হয়না। জীবনে যদি আরও সবুজ যোগ করার প্রয়োজন হয়, তবেই ছোট ব্যালকনি থেকেই শুরু করতে পারো। আর এইসব কিছু নিয়েই আমাদের আজকের এই আয়োজন।  

গাছ আমরা কে না ভালোবাসি। সবুজে ঘেরা চারপাশ, যা চোখের শান্তির পাশাপাশি মনকেও এক প্রশান্তিতে ভরিয়ে দেয়। কিন্তু এই শহরে এভাবে মনের মত করে বাগান করা অনেকেরই হয়ে উঠেনা। তাই সময় এবং স্থান সংকুলানের কথা চিন্তা করে ভার্টিকেল গার্ডেন হতে পারে বেস্ট চয়েস। ছোট্ট ব্যালকুনি বা বারান্দায় সূর্যের আলো বাতাসের সুযোগ থাকলে তৈরি করে নিতে পারো এই সবুজ প্রাকৃতিক দৃষ্টি নন্দন দেওয়াল। নূন্যতম পরিমান প্রচেষ্টার বিপরীতে সর্বাধিক রিটার্ন পাওয়া যায় এই ধরনের বাগানে। একদম সিম্পল থেকে শুরু করে জটিল পর্যায়ের এই ক্রিয়েটিভ কাজ এক সুন্দর ও মনোরম সবুজে পরিবেষ্টিত লুক দিবে।

এই ভার্টিকেল বাগানে কি গ্রো করা যায় তা গবেষণা করার আগে বিবেচনা করা প্রথম জিনিসটি হল তোমার বারান্দায় এই ধরনের বাগানের জন্য উপযুক্ত পরিবেশ আছে কিনা। স্থান বা আকার নির্বিশেষে সবুজের বৃদ্ধির জন্য কিছু জিনিস বিবেচনা করা প্রয়োজন। যেমন-

-গাছের কতটা সূর্যালোক লাগবে তা নির্ভর করে এর ধরন এবং প্রজাতির উপর। কিছু গাছ সরাসরি সূর্যালোক পছন্দ করে, যেখানে অন্যরা ছায়ায় বৃদ্ধি পায়। তোমার বারান্দায় কেমন সূর্যের তাপ আসে এবং গাছপালা পূর্ব বা পশ্চিমমূখী হওয়া প্রয়োজন কিনা তা বিবেচনা করা গুরুত্বপূর্ন।

-বৃষ্টি, অত্যাধিক হাওয়া, রোদ-এই উপাদানগুলোর উপস্থিতি বারান্দায় কেমন এবং এগুলো মোকাবেলায় গাছগুলো সক্ষম কিনা, তাও মাথায় রাখতে হবে। কারন অনেক সময় যদি দেখো বারান্দায় প্রচুর বাতাস আছে, তাহলে গাছও বাতাসের দ্বারা প্রভাবিত হবে। কিছু নির্দিষ্ট প্রজাতির উদ্ভিদ আছে যেগুলো চরম ঠান্ডা বা গরমে বাঁচতে পারেনা। আবহাওয়ার এমন পরিস্থিতি হলে সেক্ষেত্রে গাছগুলোকে কিছু দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে নতুবা ভিতরে নিয়ে যেতে হতে পারে।

-যেহেতু এই ধরনের বাগানে গাছগুলোকে সরাসরি মাটিতে রোপন করা হয়না, তাই মূলের আকারের পাশাপাশি গাছের আকারের উপরও গুরুত্ব দেয়া উচিৎ। কিছু গাছপালা বেশ বড় হতে পারে এবং বড় পাত্রের প্রয়োজন হতে পারে। যদি এমন হয় তবে সেই গাছগুলো এই রকম উলম্ব বাগানের জন্য পারফেক্ট নয়।

-এই ধরনের বাগানের জন্য যে স্থানটি নির্বাচন করা হবে তার আকারের উপর নির্ভর করে এটি বর্ধিত করতে হবে। এর স্থাপন এবং বাগানটি লালন-পালন ও রক্ষণাবেক্ষণ করার জন্য সেভাবে জায়গা রাখতে হবে।

বারান্দায় ভার্টিকেল বাগান স্থাপন করার জন্য কী দরকার?

উপরে উল্লেখিত বিবেচিত বিষয়গুলো যদি সব হয়ে যায় তাহলে বলা যায় তমার বারান্দাটি একম ভার্টিকেল গার্ডেনের জন্য উপযুক্ত স্থান। এখন এটি স্থাপনের জন্য যা যা দরকার-

-তোমার বারান্দার এমন স্থান বেছে নিতে হবে যেখানে প্রচুর উলম্ব জায়গা রয়েছে, যাতে গাছপালা গুলো সঙ্কুচিত হওয়ার চান্স না থাকে। এছাড়াও গাছের বৃদ্ধির জন্য জায়গাটিতে পর্যাপ্ত আলো বাতাসের চলাচল ঘটে।

-উলম্ব বাগান স্থাপন করার আগে, গাছপালাগুলো যেখানে উন্মুক্ত হবে সেখানকার পরিবেশ বিবেচনা করো। বৃষ্টি কি বারান্দায় আসে? কত ঘন ঘন বৃষ্টি হয়? জলবায়ু কতটা গরম বা ঠান্ডা? এইসব প্রশ্নের উত্তরের উপর নির্ভর করবে বাগানটি কোথায় স্থাপন করবে। ছোট জায়গায় যেহেতু গাছে পানি দেয়ার জন্য স্বয়ংক্রিয় সিস্টেম রাখা হয়না। তাই বৃষ্টির সময় খেয়াল রাখতে হবে পানি দেয়ার প্রয়োজন আছে কিনা বা গাছগুলোতে পানি জমে আছে কিনা। আবার যদি সরাসরি একটানা রোদের তাপ পায় তা থেকে বাঁচতে শামিয়ানা টানানো হতে পারে।

-এই বাগানে গাছপালাগুলো যেহেতু লম্বালম্বিভাবে স্থাপন করা হয়, তাই অতিরিক্ত ওজন এড়ানোর জন্য এতে মাটির পরিমান অনেক কম থাকে। এখানে সাধারনত ব্যবহৃত হয় কোকপিট, জৈব সার এবং অল্প পরিমানে মাটি। মাটির পরিমান কম থাকার দরুন গাছে ক্ষতিকর পোকামাকড় তৈরি হওয়ার চান্স কম থাকে।

-মাটির কম ব্যবহারে পোকামাকড় কম হলেও বারান্দার অবস্থানের উপরও কিন্তু কীটপতঙ্গ হওয়া নির্ভর করে। তুমি যদি নিচতলায় থাকো তবে কীটপতঙ্গ সহজেই ব্যালকনিতে প্রবেশ করতে পারবে। আবার যদি উঁচু জায়গায় থাকো সেক্ষেত্রে  কিছুটা কম হবে। এইজন্য বাগ প্রতিরোধক মজুদ করে রাখতে হবে।

গাছ নির্বাচন

এই ভার্টিকেল গার্ডেনে এডিবল এবং নন-এডিবল দুত ধরনেরই গাছ লাগানো যেতে পারে। উলম্বভাবে শাকসবজি বাড়ানো যায়। ডাল এবং মটরশুঁটি খুব সুন্দরভাবে বেড়ে ওঠে। টমেটো রোপন করা যেতে পারে। কিছু প্রজাতির স্কোয়াশ আছে যা উলম্বভাবে বৃদ্ধি পায়। এছাড়াও অন্যান্য শাকসবজি যেমন, লেটুস, ব্রকোলি, লালশাক, পালংশাক, ক্যাপসিকাম ইত্যাদি দিয়েও এই বাগান সাজানো যায়। আর নন-এডিবল যেমন, মানিপ্ল্যান্ট, ফার্ণ, স্পাইডার প্ল্যান্ট, ড্রাসিনা, রিও ইত্যাদি  গাছ দিয়েও মনের মত করে সাজানো যেতে পারে।

-ছবি সংগৃহীত

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

fifteen + 3 =