আইন

মাফ হয় না দেনমোহর

করেছে Rodoshee

দেনমোহর নিয়ে আছে নানা ভুল ধারণা। দেনমোহর বিষয়ে আইন কী বলে। জানাচ্ছে প্রাক্তন আইন শিক্ষক ও সাংবাদিক ফারজানা আফরিন
ফেসবুকে একদিন হুট করেই মেসেজ আসলো। দিবা (ছদ্মনাম) নামে একজন নারী আমার নম্বরটি চেয়ে মেসেজ করেছেন। মেয়েটিকে আমি যে খুব বেশি চিনি তাও নয়। আমার এক ঘনিষ্ঠ বন্ধুর মাধ্যমে একবার কথা হয়েছিল মাত্র। এজন্য আমি খুব সিরিয়াসলি বিষয়টি নেই। আমি দ্রুত নম্বরটা দিয়ে দেই। ভাবলাম, না জানি কোনো বিপদে পড়েছে! সামাজিকভাবে প্রতিষ্ঠিত এবং উচ্চ শিক্ষিত দিবা (ছদ্মনাম) জানালো, প্রায় ৫ মাস আগে তার স্বামীকে সে তালাক দিয়েছে। কারণটিও গুরুতর। স্বামীর সঙ্গে সহকর্মীর একটি গোপন অন্তরঙ্গ ভিডিও তার হাতে এসে পড়েছে এবং তারপর সে তার স্বামীর সঙ্গে এসব নিয়ে কথা বলতে গেলে স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির সবাই তাকে মানসিক অত্যাচারসহ শারীরিক নির্যাতনও করতে শুরু করেছিল। বাড়ি থেকে বেরিয়ে এসে কর্মজীবী হোস্টেলে ওঠে দিবা এবং পরবর্তীতে স্বামীকে তালাক দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এখন সে তার বিয়ের দেনমোহরের টাকা স্বামীর কাছ থেকে পাবে কিনা এ বিষয়ে আমার কাছে জানতে চায়। একজন নারী আইনজীবীর সাহায্যও সে চায় আমার কাছে। কারণ তাকে তার পরিচিত বেশিরভাগ মানুষই বলেছে, যেহেতু নিজে তার স্বামীকে তালাক দিয়েছে, তাই সে দেনমোহর পাবে না। দেনমোহর নিয়ে আমাদের দেশে অনেকের মাঝেই আছে বিভিন্ন রকম ভ্রান্ত ধারণা। বেশির ভাগই মনে করেন স্ত্রী স্বেচ্ছাপ্রণোদিত হয়ে স্বামীকে তালাক দিলে দেনমোহর দাবী করতে পারে না। আবার সাথে সাথে এরকম ধারণাও আছে যে স্বামী মারা গেলে মাফ হয়ে যায় দেনমোহর। মূলত মুসলিম আইনে দেনমোহর হলো স্বামীর কাছ থেকে স্ত্রীর পাওয়া এক ধরণের বিশেষ অধিকার। এই দেনমোহর যে কোনো অবস্থায় পরিশোধ্য এবং কোনো অবস্থায় মাফ হয় না। আমাদের দেশে আজকাল যে বিষয়টি খুব চোখে পড়ে তা হলো জাঁকজমকপূর্ণ বিয়ের আয়োজনে ‘সোশাল স্ট্যাটাস’ বাড়াবার একটি অংশ হিসেবে বরকনের প্রকৃত আর্থিক অবস্থা মাথায় না রেখেই নির্ধারণ করা হয় উচ্চমাত্রার দেনমোহর। বিয়ের পর এই দেনমোহর পরিশোধ করবার চর্চা এ দেশে বলতে গেলে নেই। দেনমোহর দুই ধরণের: তাৎক্ষণিক দেনমোহর ও বিলম্বিত দেনমোহর। বিয়ের সময় সাধারণত ‘উশুল’ নামে যে অংশটি কাবিননামায় আদায় হিসেবে দেখানো হয় শাড়ি-গয়না বাবদ তাই হলো তাৎক্ষণিক দেনমোহর। আর যে অংশটুকু বাকি রাখা হয় তাই হলো বিলম্বিত মোহরানা। স্ত্রীর কাছ থেকে সময় নিয়ে কিছু বিলম্বে স্বামী তা পরিশোধ করতে পারে। যদি স্ত্রী দেনমোহর দাবি করে এবং স্বামী তা পরিশোধ না করে তবে স্ত্রী সিদ্ধান্ত নিতে পারে স্বামীর কাছ থেকে পৃথক বাস করার এবং এই পৃথকবাসের সময় স্ত্রীর ভরণপোষণ স্বামী দিতে বাধ্য থাকবে। এমনকি স্ত্রী যদি স্বামীর সঙ্গে দাম্পত্য সম্পর্ক রাখতে না চায় তাহলে অস্বীকৃতিও জানাতে পারে সে বিষয়েও। কিন্তু বর্তমানে দেনমোহর এমন একটি বিষয়ে এসে দাঁড়িয়েছে যে তালাক না হলে স্ত্রীর দেনমোহর দাবি করার প্রসঙ্গটি আর আসেই না। দেনমোহরের পরিমাণ নিয়ে আইনে সুনির্দিষ্ট কিছু বলা নেই। তবে বর-কনের সামাজিক ও আর্থিক মর্যাদা অনুযায়ী সাধারণত এর পরিমাণ নির্ধারণ করা হয়। দেনমোহরের সাথে দাম্পত্য সম্পর্কের একটি যোগসূত্র রয়েছে। বিয়ের পর যদি শারীরিক সম্পর্ক হবার আগেই বিচ্ছেদ বা স্বামী মারা যায় তাহলে স্ত্রী দেনমোহরের অর্ধেক পাবার অধিকারি হবেন। দেনমোহর সংক্রান্ত মামলা স্থানীয় সহকারী জজ আদালতে দায়ের করতে হয়। ১৯৮৫ সালের পারিবারিক আইন অধ্যাদেশের ৫ ধারা অনুযায়ী এই আদালত দেনমোহর সংক্রান্ত মামলা বিচার করে। মামলা করতে হবে দেনমোহর দাবি করার ৩ বছরের মধ্যে। অর্থ্যাৎ তালাক হয়ে গেলে তালাকের তারিখ থেকে ৩ বছরের মধ্যে এ মামলা দায়ের করতে হবে। আদালত স্বামীকে স্ত্রীর প্রাপ্য দেনমোহর পরিশোধের আদেশ দেবার পর যদি স্বামী তা পরিশোধ না করে তবে আদালতের আদেশের ৩০ বা ৬০ দিনের মধ্যে (রায়ে উল্লিখিত থাকবে) একই আদালতে ডিক্রি জারির মামলা করতে পারে স্ত্রী। এই মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করবে আদালত এবং দেনমোহর অর্থ আদায় না হওয়া পর্যন্ত স্বামীকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেবে। তাই উল্লিখিত সমস্যাটির ক্ষেত্রে এটি পরিষ্কার যে, মেয়েটি তার স্বামীকে যে কারণেই তালাক দিক না কেন স্বামীর কাছ থেকে দেনমোহরের টাকা পাবার অধিকার তার আছে এবং তা চেয়ে সে আদালতে মামলাও করতে পারবে। এমনকি তালাক না হলেও মেয়েটি দাম্পত্য সম্পর্ক থাকাকালীন সময়েও স্বামীর কাছে এই টাকা দাবি করতে পারতো স্বামী তা দিতে অস্বীকৃতি জানালে একই পদ্ধতিতে সে আদালতের শরণাপন্নও হতে পারতো। স্বামী মারা যাবার ৩ বছরের মধ্যে স্ত্রী তার স্বামীর সম্পত্তি থেকে দেনমোহরের অর্থ আদায় করতে পারবে এবং তা আদায় করার জন্য স্বামীর সম্পত্তির উত্তরাধিকারীদের বিরুদ্ধেও পারিবারিক আদালতে মামলা দায়ের করতে পারবে। স্ত্রী যদি আগে মারা যায় তবে স্ত্রীর সম্পত্তির উত্তরাধিকারীরা সেই স্ত্রীর পক্ষে দেনমোহর অর্থ আদায়ের জন্য স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করতে পারবে। বকেয়া দেনমোহর একটি ঋণের মতো। স্ত্রী দাবী করলে স্বামীর সম্পত্তি বিক্রয় করে হলেও এটা পরিশোধ করতে হবে ঠিক অন্যান্য পাওনাদারদের যেভাবে পরিশোধ করার আদেশ দেয় আদালত। ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইনের ১০ ধারায় দেনমোহর পরিশোধের পদ্ধতি সম্পর্কে বলা হয়েছে বিয়ের কাবিনে পরিশোধ সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু না থাকলে স্ত্রী চাওয়ামাত্র তা সম্পূর্ণ পরিশোধ করতে হবে। এছাড়া ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইনের ৬ (৫) ধারায় বলা হয়েছে সালিশি পরিষদের অনুমতি ছাড়া আরেকটি বিয়ে করলে স্বামীকে অবিলম্বে তার বর্তমান স্ত্রীর প্রাপ্য দেনমোহরের যাবতীয় অংশ পরিশোধ করতে হবে। এই অর্থ পরিশোধ করা না হলে তা বকেয়া রাজস্বের মতো করে আদায় করা হবে। একই আইনে শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে একবছর পর্যন্ত কারাদন্ড এবং ১০ হাজার টাকা জরিমানা। নারীর শিক্ষা, পোশাক, নারীর চলাফেরা ও চাকরির অধিকার নিয়ে নানান ধর্মীয় ফতোয়া বিভিন্ন সময় নানান মানুষকে দিতে দেখা গেলেও, দুঃখজনকভাবে সরাসরি কোরআনে নির্দেশিত নারীর অধিকার, দেনমোহর আদায় করতে অনাগ্রহী বেশিরভাগ স্বামীই। দেনমোহরের সম্পদ স্ত্রীর একান্ত নিজের। এখানে অন্য কারও কোনও অধিকার নেই। স্ত্রী তার সম্পূর্ণ নিজের স্বাধীন মতে এই অর্থ যেকোনও কিছুতে ব্যয় করতে পারে। দেনমোহর মুসলিম বিয়েতে স্ত্রীর প্রতি একটি অপরিহার্য এবং সর্বাবস্থায় পরিশোধ্য একটি দায় স্বামীর। তাই বিয়ের সময় বর-কনের মাতা-পিতাসহ সব অভিভাবক ও বর-কনের নিজেদেরও এই বিষয়ে সচেতনতা থাকা প্রয়োজন। শুধু বিচ্ছেদ হলেই দেনমোহর পরিশোধ করতে হয় এই ভ্রান্ত ধারণার কারণে এবং বিয়ের সময় যেহেতু এটা একটা শুভক্ষণ সে সময় কেউই বিচ্ছেদের কথা ভাবেন না, তাই দেখা যায় সামাজিক স্ট্যাটাস এর অংশ হিসেবে চড়ামূল্যে দেনমোহর নির্ধারণ করা হয়। আর মনস্তত্বের ভেতরেই ঢুকে গেছে যে, ডিভোর্স না হলে তো আর এটা পরিশোধের কোনও প্রয়োজন নেই। তাই দেনমোহর এর পরিমাণ হওয়া উচিত এরকম যা স্বামী তাৎক্ষণিকভাবে স্ত্রীকে পরিশোধ করার ক্ষমতা রাখে। কিংবা বিলম্বিত মোহরানার ক্ষেত্রেও এটি মাথায় রাখতে হবে বিয়ের পরপর যতো দ্রুত সম্ভব তা যেন স্ত্রীকে পরিশোধ করে ফেলা হয়। আজকাল সচেতন অনেককেই দেখা যায়, বিয়ের আসরেই তাৎক্ষণিক হিসেবে দেনমোহরের পুরো অর্থ কনেকে দিয়ে দেয়। তাই ধর্মীয় দৃষ্টিভঙ্গি ছাড়াও আইনগত দিকটি চিন্তা করে হলেও সবার উচিত দ্রুত সম্ভব দেনমোহর পরিশোধ করে দেওয়া।

০ মন্তব্য করো
1

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

five × 1 =