যে পাঁচটি কারণে তোমার বন্ধু নেই!

করেছে Rodoshee

‘বন্ধু’- ছোট্ট এই শব্দটির প্রয়োজনীয়তা আমাদের জীবনে অনেক। বেঁচে থাকার জন্য যে মৌলিক চাহিদাগুলো আছে, তার মধ্যে যদি এই বন্ধু শব্দটি যোগ করে দেওয়া হয়, তাহলে মনে হয় না খুব একটা অন্যায় হবে। একজন মানুষের জীবনে বন্ধুর কোনো বিকল্প হয় না। বন্ধু মানে এমন কেউ, যাকে তুমি নিশ্চিন্তে মনের সব কথা বলতে পারো। জীবনের সবচেয়ে ভালো কথা থেকে শুরু করে সবচেয়ে খারাপ কথাটিও তোমার বন্ধুকেই বলতে পারো। তবে নিজের সব কথা বলতে পারার মতো বন্ধু পাওয়া কিন্তু যেনতেন ব্যাপার নয়। বন্ধু পেতে চাইলেও তোমাকে বন্ধু পাওয়ার যোগ্যতা রাখতে হবে। আর এ কারণেই বোধ হয় এমন অনেকে আছো, যাদের জীবনে বন্ধুর বড় অভাব। আসো দেখি কী কী কারণের জন্য তোমার কোনো বন্ধু নেই!

তুমি খুব বেশি আত্মকেন্দ্রিক:

তোমার কোনো বন্ধু না থাকার অন্যতম কারণ হতে পারে তোমার খুব বেশি আত্মকেন্দ্রিক স্বভাব। বন্ধু মানেই এমন কিছু যেখানে লুকোচুরি বা আত্মভোলা ব্যাপারটা খুবই ক্ষতিকর। তাই তোমার যদি কেবল নিজেকে নিয়ে মগ্ন থাকার অভ্যাস থাকে, তাহলে তোমার ভাগ্যে বন্ধু জোটার সম্ভাবনা কম। নিজেকে নিয়ে সব সময় ব্যস্ত না থেকে আশপাশের মানুষদের নিয়ে ভাবো, আগ্রহ দেখাও, বন্ধুর অভাব হবে না।

অন্যদের খোঁচাতে পছন্দ করো:

এই জীবনে তুমি কখনোই ভালো বন্ধু পাবে না, যদি তুমি অন্যদের খোঁচাতে ভালোবাসো বা অন্যকে সব সময় কষ্ট দিয়ে কথা বলে থাকো। একজন মানুষ শুধু নিজের ইচ্ছা এবং নিজের মনমানসিকতার সঙ্গে মিল পেলে অন্য আরেকজন মানুষের সঙ্গে বন্ধুত্বের সম্পর্ক তৈরি করো। সে ক্ষেত্রে তুমি যদি কেবল মানুষের সঙ্গে এটা সেটা নিয়ে ঝামেলা বাঁধিয়ে থাকো বা অন্যকে কথা বা কাজের মাধ্যমে কষ্ট দিতে থাকো, তাহলে বন্ধুত্ব কখনোই কারও সঙ্গে হবে না।

তোমার ব্যক্তিত্বহীনতা:

তুমি কি খুব বাচাল? কিংবা খুব বেশি অস্থির প্রকৃতির? ভালো করে মাথায় রাখো বাচালতা বা অস্থিরতা এই দুটোই ব্যক্তিত্বহীন মানুষের লক্ষণ। তাই তোমার যদি এই দুই গুণের কমতি না থাকে, তাহলে কারও সঙ্গেই ঠিকঠাক বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারবে না। তাই আগে নিজেকে ঠিক করে অন্য সবার সামনে উপস্থাপন করো। দেখবে সবাই তোমার বন্ধুত্ব কামনা করছে।

তোমার অবাস্তব প্রত্যাশা:

খুব সহজ করে বলতে গেলে বন্ধুত্বের মানে একে অন্যের ভালো-খারাপ সবকিছু শেয়ার করা বা সুখে-দুঃখে একজন আরেকজনের পাশে থাকা ইত্যাদি। কিন্তু তুমি বন্ধুত্বের দোহাই দিয়ে যদি কারও কাছে অবাস্তব কিছু আশা করে ফেলো, তাহলে তোমার বন্ধু তোমার সঙ্গে সম্পর্ক না রাখতে সামান্য দ্বিধাবোধ করবে না। বন্ধুত্বর বদলে কিছু পাওয়ার প্রত্যাশা বাদ দাও আর দেখো তোমার আশপাশে কত বন্ধুর সমাগম ঘটে।

তুমি হিংসুটে স্বভাবের:

তোমার হিংসুটে স্বভাবের জন্য কেউ তোমার বন্ধু হবে না এটাই স্বাভাবিক। বন্ধুত্বে হিংসার কোনো জায়গা নেই। তুমি যদি মনে করো কেউ শুধু তোমাকেই তার বন্ধু বানিয়ে রাখবে আর কাউকে বন্ধু করতে পারবে না, তাহলে এটা তোমার অন্যায় আবদার। বন্ধুদের মধ্যে ঈর্ষা, হিংসা বা বিদ্বেষ থাকে না, যদি তুমি তা করো তাহলে কেউ তোমার সঙ্গে বন্ধুত্ব রাখতে চাইবে না। বন্ধু বন্ধুই, কোনো প্রতিযোগী নয়।
বন্ধু বানানোর সবচেয়ে সহজ উপায় হলো নিজের ইতিবাচক মনোভাব বজায় রাখা। খুঁতখুঁতে স্বভাব বর্জন করো ও একটু খোলা মানসিকতার হও। জীবনে বন্ধুর অভাব হবে না।

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

eighteen − seven =