শীতে ফেটেছে ঠোঁট?

করেছে Shaila Hasan

শায়লা জাহানঃ

 

মনে আছে জনপ্রিয় সেই বিজ্ঞাপনের কথা? সুন্দরী ললনার ফাটা ঠোঁট দেখে যুবক গেয়ে উঠেছিল “শীতে ফেটেছে ঠোঁট/ হৃদয়ে লেগেছে চোট”। দিন পাল্টেছে। ফাটা ঠোঁটের ইতিহাস এখন অনেক পুরনো। সচেতন নারী-পুরুষ সকলেই এখন এই ফাটা ঠোঁটের ব্যাপারে অনেক সতর্ক। কিন্তু যত যাই করা হোক না কেন শীতের হিমেল বাতাস ও আর্দ্রতায় ঠোঁটে কিছুটা হলেও প্রভাব পড়েই। আর এর জন্য দরকার অগ্রীম কিছু যত্নআত্তির। সেইসব কিছু নিয়েই সাজানো হয়েছে আজকের লেখাটি।

শীতকালে আমাদের ত্বক শুষ্ক হয়ে যায় এবং আমাদের ঠোঁটও সেই নিয়মের ব্যতিক্রম নয়। ঠোঁটের সূক্ষ্ম ত্বক সাদারণত শীতকালেও ঢেকে রাখা যায়না তাই তারা শরীরের অন্যান্য অংশের তুলনায় শীতের আবহাওয়ার সংস্পর্শে আসে বেশি। শীতকালে আর্দ্রতার অভাব আরেকটি চাপ যা ত্বক ও ঠোঁটকে শুষ্ক করে দিতে পারে। সব মিলিয়ে শীতকালে ফাটা, শুষ্ক ঠোঁটের জন্য কঠিন সময়। যদিও এখনকার সময়ে সকলেই সচেতন, তবে ঠোঁটকে যদি আরও নরম ও মসৃণ রাখতে চাও তবে এই চেকলিস্টটি দেখে রাখতে পারো।

নিয়মিত লিপ বাম ব্যবহার

ঠোঁটকে ঠান্ডা, শুষ্ক বাতাস থেকে রক্ষা করতে এবং সেগুলোকে ময়েশ্চারাইজ রাখতে নন-ইরিটেটিং লিপ বামগুলো দিনে কয়েকবার এবং অবশ্যই শোবার আগে ব্যবহার করো। এতে রাতে তুমি যখন ঘুমাচ্ছো তখন তোমার ঠোঁট গভীর পুষ্টি এবং ময়েশ্চারাইজেশনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে তা নিশ্চিত হয়। তবে লিপ বামগুলো যাতে ভালো মানের এবং নন-ইরিটেটিং উপাদানের হয় তা খেয়াল রাখতে হবে। ইরিটেটিং উপাদানগুলোর মধ্যে রয়েছে স্বাদ, কর্পূর, ইউক্যালিপটাস, মেন্থল এবং অন্যান্য সুগন্ধি।

এসপিএফ সমৃদ্ধ লিপবাম

লিপবাম বা লিপ প্রোডাক্টগুলো যাতে এসপিএফ সমৃদ্ধ হয় তা দেখতে হবে। তুমি হয়তো বুঝতে পারবেনা কিন্তু ঠোঁটকেও সূর্য থেকে সুরক্ষার প্রয়োজন হয় ঠিক তোমার বাকি ত্বকের মতো। এসপিএফ একটি প্রতিরক্ষামূলক স্তর হিসেবে কাজ করে যাতে তারা পিগমেন্টেড এবং শুকিয়ে না যায়।

হাইড্রেটেড থাকা

পচুর পানি পান করার মাধ্যমে পুরো শরীরকে হাইড্রেটেড রাখার পাশাপাশি তা ঠোঁট ফাটা এবং শীতকালে অতিরিক্ত শুষ্ক হওয়া থেকে রক্ষা করা যেতে পারে। এই সময় আমরা খুব তৃষ্ণার্ত বোধ করিনা, কিন্তু তাই বলে সারাদিন পানি পান করতে ভুলে গেলে চলবেনা।

ঠোঁট অহেতুক চাটা থেকে বিরত থাকা

শুষ্ক ঠোঁট জিব দিয়ে চাটা, উঠে যাওয়া পাতলা চামড়া নখ দিয়ে খুঁটে তোলা- প্রায় অধিকাংশেরই একটি কমন অভ্যাস। ঠোঁটের বিরুদ্ধে এই ঘর্ষণ তাদের আরও ক্ষতি করতে পারে এবং আরও শুষ্ক করে তোলে। তাই এই অভ্যাস পরিহার করতে হবে। যখনই ঠোঁট শুকিয়ে যাওয়ার প্রবণতা হবে তখনই লিপ বাম প্রয়োগ করতে হবে।

এক্সফোলিয়েট

হালকা হাতে এক্সফোলিয়েশন মরা চামড়া অপসারণ করতে সাহায্য করতে পারে। এটি খুবই কার্যকর ঘরোয়া প্রতিকার যা ঠোঁটকে এক্সফোলিয়েটের মাধ্যমে এর প্রাকৃতিক কোমলতা ফিরিয়ে আনে। এইক্ষেত্রে সবচেয়ে কার্যকর হলো মধু এবং চিনির মিশ্রণ। এই মিশ্রণটি ঠোটে ৫-১০ মিনিটের জন্য আলতোভাবে ঘষে ধুয়ে ফেললেই হবে। এগুলো অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে সমৃদ্ধ এবং ইউভি রশ্মি থেকে সুরক্ষার জন্য ঠোঁট বাম হিসেবেও ব্যবহার করা যেতে পারে।

-ছবি সংগৃহীত

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

five × four =