সন্তানের সঙ্গী হোন

করেছে Tania Akter

রোদসী ডেস্ক

সন্তান পরম ধন। তাকে আগলে রাখতে হয়। শৈশবের কৌতুহলী প্রশ্নে, কৈশোরের শরীর ও মনের পরিবর্তনে কিংবা তারুণ্যের দীপ্তি ছড়ানোর সময়ে সঙ্গী হোন সন্তানের। তা না হলে একটু একটু করে বাড়তে থাকে দূরত্ব। অচেনা হতে থাকে প্রিয় সন্তান। তারপর সব বাঁধন আলগা হয়ে রুপান্তরিত হয় অন্য মানুষে। তাই জীবনের নানা ধাপে সন্তানের সঙ্গী হোন। বিশ্বাস ও বন্ধুত্বে আগলে রাখুন পরম মমতায়।

 

শৈশবের দুরন্ত সময়ে

শিশুরা ভীষণ কৌতুহলী হয়। তাকে নির্দ্বিধায় কথা বলার সুযোগ দিন। শুধু খেলনা কিনে দিয়েই দায়িত্ব শেষ না করে খেলার সঙ্গীও হোন।

সব প্রশ্নের যথাযথ উত্তর দিন। তার মনের রঙিন পাখা মেলে দেয়ার সুযোগ করে দিন। পৃথিবীর কঠোরতা দেখে আতঙ্কিত হলে অভয় দিন। বিভ্রান্ত হলে যৌক্তিক সমাধান দিয়ে জানার আগ্রহকে আরো বাড়িয়ে তুলুন। 

স্কুলের বন্ধুদের কথা শুনুন। পড়ালেখায় বন্ধুর মতো সহযোগী হোন। তার পছন্দ আর অপছন্দের গুরুত্ব দিয়ে সব সময় তার পাশে আছেন এটা নিশ্চিত করুন।

 

শরীর পরিবর্তনের সময়ে

বয়ঃসন্ধিতে অনুভূতির নানা রঙের সঙ্গে পরিচিত হয় সন্তানের শরীর ও মন।

এই পরিবর্তনে নানা প্রশ্নের ঘুরপাক খায়। বাড়তে থাকে  কৌতুহল। তাই এসময় তার পরিবর্তনের কথাগুলো শোনার আগ্রহ দেখাতে হবে। প্রশ্ন না করলেও নিজের অভিজ্ঞতা বলতে থাকুন।

ধীরে ধীরে দুজনের জড়তা  কেটে গেলে উপযুক্ত পরামর্শ দিন।

শরীর ও মনের এই পরিবর্তনের বৈজ্ঞানিক ব্যাখা দিন। ভুল করলে শুধরানোর সময় দিতে হবে। আর ভালো কাজের প্রশংসা করে উৎসাহী করে তুলতে হবে। নিজে জন্ম দিলেও মানুষ হিসেবে তার বৈশিষ্ট্য আলাদা। আর এই সময়টায় সেই বিষয়গুলো সামনে এলে নিজেকে সামলে নিয়ে তার মতামতকে গুরুত্ব দিয়ে বুঝতে হবে।

 

তারুণ্যের উচ্ছল সময়ে

তরুণ বয়সে সন্তানের সঙ্গে দূরত্বে দেয়াল তৈরি হয়ে যায়। কারণ অনেকে মনে করেন এই বয়সে সন্তানেরা তাদের ঘনিষ্ঠতার সুযোগ নিতে পারে। আর এই উচ্ছল সময়ে জগতের সব অজানাকে জানতে চায়, দেখতে চায় আর অভিজ্ঞতা নিতে চায়। তারুণ্যকে উপভোগের সাথে জড়িয়ে থাকে বিপদের আভাসও।

 

 

জীবনের এই ধাপে সন্তানকে একা করে দেয় কিংবা শাসনসর্বস্ব সম্পর্ক রাখে। ফলে শুধুই শাসনের বেড়াজালে বিরক্ত হয়ে তরুন মন।

তখন ভরসার হাত না পেলে কোমল হৃদয়ে চলতে থাকে ভাঙা গড়ার খেলা। কেউবা একাকীত্বের গহীনে ডুবে যায় কেউবা স্বৈরাচারি জীবনে অভ্যস্ত হয়ে পড়ে। আর এভাবেই পুরোপুরি বদলে যায় প্রিয় সন্তান।

তাই তরুন বয়সের এই সংকটময় মুহূর্তেও সঙ্গী হোন সন্তানের।

দায়িত্ব নেয়ার বয়সে

সন্তানের দায়িত্ব নেয়ার বয়সে তার ছায়ায় বাকিটা জীবন কাটাতে চায় বাবা মায়ের। এই সন্তানের ভবিষ্যৎ নির্মাণে এত দীর্ঘ সময় পার করার পর অনেক প্রত্যাশা থাকে।

 

এই সময়টায় সন্তান অনুভতির চরম সংকটে পড়ে। জীবনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ধাপেও প্রবেশ করে  এই সময়। কারো স্বামী কিংবা স্ত্রী হয়ে সংসারের দায়িত্ব নিতে হয়। কোলজুড়ে আসে  সন্তান।

 

 

ফলে এসময় চাহিদার চাপ বাড়তে থাকলে দায়িত্বে বোঝায় ভারাক্রান্ত হয়ে ভুল পথ বেছে নেবে। তাই এই সময়টায় ধীরে ধীরে জীবনের গুরুত্ব বোঝাতে হবে। সুস্থ ও সুন্দর জীবনের জন্য যা প্রয়োজন সেই মন্ত্র শেখাতে হবে।

এভাবেই সন্তানের বিশ্বাসী বন্ধু হয়ে মায়ার বাঁধনে জড়িয়ে রাখুন জীবনভর।

ছবি: ইন্টারনেট

 

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

2 × 4 =