সাজ হবে চোখধাঁধানো

করেছে Sabiha Zaman

সুরাইয়া নাজনীন: কনের সাজ হওয়া উচিত চোখধাঁধানো। কারণ, বিয়েবাড়ির প্রধান আকর্ষণ থাকে কনে, বরও কম যায় না। নতুন বউ দেখতে আসে আগ্রহী হয়ে থাকে। তাই কনেসাজ হতে হবে নজরকাড়া খেয়াল রখতে হবে, কনের নিজস্ব সৌন্দর্য যেন অতিরিক্ত সাজের কারণে হারিয়ে না যায়। স্বাভাবিক লুক বজায় রেখে একটা হালকা মিষ্টি ধাঁচের সাজ হলে মন্দ হবে না। এ প্রসঙ্গে রাহিমা সুলতানা বলেন, একালের মেয়েরা অতিরিক্ত মেকআপটা এমনিই পছন্দ করে না। তাই এখন এমন সাজ বেশ গ্রহণযোগ্যতা পাচ্ছে বলে মনে করেন তিনি।

স্যালনে হলুদ, বিয়ে, বউভাত আর পানচিনি প্রতিটির ব্রাইডাল মেকআপ পৃথকভাবে বা প্যাকেজ হিসেবে করা যায়। প্রথমে পানচিনি (বাগদান), তারপর গায়েহলুদ, আক্দ, তারপর বিয়ে-বউভাতের পুরোনো ধরন কিছুটা বদলেছে। এখন অনেক সময় বিয়ে-বউভাত আলাদা না হয়ে দুই পক্ষ থেকে একটাই বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান হচ্ছে। এর সঙ্গে পানচিনি ও আকদের অনুষ্ঠান একটু ঘটা করেই হোক কিংবা ঘরোয়া ধাঁচের, মেয়েরা সবটাতেই বিউটি স্যালনের সাজাটাই পছন্দ করছে। সে ক্ষেত্রে হলুদ, আক্দ বা বিবাহোত্তর সংবর্ধনায় বিউটি স্যালনে তিনটি অনুষ্ঠানের জন্য যে মেকআপ প্যাকেজ আছে, তা নেওয়া যেতে পারে। তার সঙ্গে পারলারে বিশেষভাবে পানচিনির যে কনেসাজ (এনগেজমেন্ট মেকআপ) আছে, তা করতে পারো। তবে ঘরোয়া পানচিনি, এমনকি আকদ এই ব্রাইডাল সাজ না চাইলে অনেকেই শুধু পার্টি মেকআপ করছে। সে ক্ষেত্রে পারলারে বলতে হবে যে পার্টিসাজ চাও। ব্রাইডালের চেয়ে পার্টি মেকআপের খরচটা হবে কম।

ছবি: রেড

পছন্দ অনুযায়ী প্রতিটি অনুষ্ঠান আলাদা বিউটি স্যালনে সাজতেই পারো। তবে এক জায়গাই সাজলে প্যাকেজে সাশ্রয় তো বটেই, তার সঙ্গে কনের চেহারার বৈশিষ্ট্যের বেশ বোঝাপড়া হয়ে যায়। কনের মুখমণ্ডলের গঠন-গড়ন বুঝেশুনে একেক অনুষ্ঠানে তাকে একেক রকম মানানসই সাজ ও চুলের স্টাইল দেওয়া যায়। এমনকি বিয়ে-পূর্ব পরামর্শকালে তাকে গায়েহলুদে কেমন ফুলের গয়নায় ভালো লাগবে, সে পরামর্শও দেওয়া সম্ভব।

বিয়ে বা বউভাতের শাড়ি নিয়ে আলাদাভাবে বলার কোনো অবকাশ নেই। দুই অনুষ্ঠানে শাড়ির কাজ একই রকম হবে। তবে মাথায় রাখতে হবে এ ক্ষেত্রে রঙের বিষয়টিকে। বিয়ের শাড়ি লাল, জাম রং বা রানি রং হতে পারে। তবে সে ক্ষেত্রে বউভাতে লাল রংটা এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। বরং সাদা, সাদা-গোলাপি, অফ হোয়াইট হালকা বেগুনি ধরনের রংগুলোতে কনেকে অনেক বেশি স্নিগ্ধ দেখাবে বউভাতের দিন।

একটি বিয়েতে সাধারণত তিনটি অনুষ্ঠান থাকে গায়েহলুদ, বিয়ে ও বউভাত এবং থাকে কনের শারীরিক ও মানসিক প্রস্তুতি। আমাদের চেষ্টা করতে হবে কীভাবে এ তিনটি অনুষ্ঠান আকর্ষণীয় করে ফুটিয়ে তোলা যায়। তাই ত্বকের ধরন অনুযায়ী যত্ন নিয়ে মেকআপ ও পরিচর্যা করো।

হলুদের সাজ

হলুদের মেকআপ সাধারণত একটু সফ্ট লুক রাখা হয়। হলুদে হলুদ শাড়ি, লাল টিপ, আলপনা, আলতা, ফুলের গয়না ইত্যাদি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আজকাল অনেক সুন্দর হলুদের গয়না পাওয়া যায়, সেগুলো শুধু ড্রাই ফ্লাওয়ার দিয়ে তৈরি করা হয় এবং শাড়ির সঙ্গে মিলিয়ে সেগুলো পরলে ভালো লাগে। হলুদের মেকআপে ফেসের কালার, টোন এবং সেইপ ঠিক রেখে মেকআপ করলে প্রোপার লুক চলে আসবে। যাদের কপাল ছোট, তারা উল্টো চুল আঁচড়ালে ভালো লাগবে। যাদের কপাল বড় তাদের মাঝে সিঁথি করে চুল আঁচড়ালে ভালো লাগবে। হেয়ার স্টাইলিংয়ের জন্য এখন খোঁপা ও বেণি দুটিই ভালো লাগবে।

ছবি: ছায়াছবি

বিয়ের সাজ

বিয়ের মেকআপ অবশ্যই ফেসের ধরন অনুযায়ী হতে হবে। ফেসের ধরন অনুযায়ী মেকআপ সিলেক্ট করা খুব জরুরি। বিয়ের মেকআপের আগে ফেসিয়াল, অয়েল ম্যাসাজ, ময়েশ্চারাইজার এবং মেকআপ প্রাইমার ব্যবহার করা উচিত। বিয়ের দিন সাধারণত একটু ব্রাইট সাজ ভালো লাগে। শাড়ির কালারের সঙ্গে চোখের শ্যাড মিলিয়ে লাগালে ভালো লাগবে। বিয়ের মেকআপ একটু শাইনি হতে হয়। কারণ, কনেকে সবাই অনেক দূর থেকে দেখবে। চোখের জন্য চোখের গড়ন অনুযায়ী ডাইমেনশান ক্রিয়েট করতে হয়। ব্রাইডাল মেকআপের জন্য আলাদা একটা স্পেস থাকা উচিত।

বউভাতের সাজ

বিয়ের পর বউভাতের আগে যদি হাতে সময় থাকে, তাহলে একটি বডি সার্ভিস এবং ফেসিয়াল নিলে ভালো হবে। বিয়ে যদি ট্রাডিশনাল সাজে হয়ে থাকে, তাহলে বউভাতের সাজটা মডার্ন লুকে ভালো লাগবে। এ জন্য লাল রঙের পরিবর্তে অন্যান্য কালার পরলেও ভালো লাগে। চুলে হাফ স্পাইরালের সঙ্গে খোঁপা করলে ভালো লাগে খোঁপায় থাকা চাই ফুল সাজের সঙ্গে মিল রেখে।

বিয়ের পরে ত্বকের যত্ন

বিয়ের দিন, হলুদ ও বউভাতের অনুষ্ঠানে অনেক ভারী মেকআপ করা হয় টানা কয়েক দিন ধরে। তাই সবার আগে মেকআপ খুব ভালোভাবে তুলে ফেলতে হবে এবং ত্বক পরিষ্কার করে ফেলতে হবে। ত্বক পরিষ্কার করার আগেই লোশন ও আই মেকআপ রিমোভার দিয়ে তোমার মুখ ও চোখের মেকআপ তুলে ফেলতে হবে। তোমার ত্বকের ধরন যাই হোক না কেন, মেকআপ তোলার জন্য মুখ ধোয়ার আগে কোনো তেলযুক্ত ক্রিম ব্যবহার করো, যাতে তোমার মেকআপ ক্রিমের সঙ্গে সহজেই মিশে যায়।

ছবি: ছায়াছবি

তবে যাদের ত্বক খুব সেনসেটিভ, তাদের জন্য গন্ধযুক্ত যে কোনো প্রোডাক্ট এড়িয়ে চলতে হবে। বাজারে অনেক মেকআপ রিমোভার লোশন পাওয়া যায়। তবে যেকোনো ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করেও এ কাজ যথেষ্ট কার্যকরভাবে করা যায়।

মেকআপ না তুলে ঘুমাতে যাবে না। যদি মেকআপ না তুলে ঘুমাতে যাও, তাহলে লোমের গোড়া বন্ধ হয়ে যেতে পারে, মাসকারা চোখের পাপড়ি ফেলে দিতে পারে বা ভেঙে ফেলতে পারে। কোনো ভালো পারলারে গিয়ে ফেসিয়াল করাতে পারো।

বরের সাজ : বউভাতের দিন ছেলের সাজে থাকবে অবশ্যই স্যুট। স্যুটের রং হতে পারে মেয়ের শাড়ির রঙের সঙ্গে মানানসই। অথবা টাই পরতে পারো কনের শাড়ির রঙের সঙ্গে মিল রেখে। তবে ছেলের পুরো পোশাক হতে হবে গর্জিয়াস। যেন কনের সাজের পাশে ছেলের সাজকে হালকা না লাগে।

 

 

 

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

3 × four =