সৌন্দর্য বাড়ায় সিলিং সজ্জা

করেছে Tania Akter

রুবাইয়া রুবি

অন্দরের শোভা বাড়িয়ে দেয় দৃষ্টিনন্দন সিলিং। বাহারি নকশা, আলো আর রঙের ছটায় সাজানো সিলিং অন্দরের অন্তরে এনে দেয় ভিন্নমাত্রা। তাই মূল সিলিং কিংবা ফলস সিলিং যা-ই হোক, পছন্দসই থিমে সাজিয়ে নেওয়া যায়। অন্দরকে আকর্ষণীয় ও অভিজাত লুক এনে দেবে সঠিক সিলিং সজ্জা।

 

রুমভেদে বাজেট নির্ধারণ
প্রতিটি বাড়িতেই একাধিক রুম থাকে। তাই প্রথমেই নির্ধারণ করতে হবে কোন রুমে কোন ধরনের সিলিং দিয়ে সাজানো হবে। ঘরে রুম যদি বেশি থাকে, তাহলে বাজেটের সঙ্গে মিলিয়ে নিতে হবে প্রথমেই। তা না হলে পছন্দসই থিম ও বাজেটের দ্বন্দ্বে আগ্রহ হারিয়ে যাওয়ার শঙ্কা থাকে। তাই রুম নির্বাচন করে রুমের সংখ্যার সঙ্গে জুতসই সিলিংয়ের পরিকল্পনা করা সহজ হবে।

রং ও নকশায় মেলবন্ধন
রুমভেদে সিলিংয়ের রং ও নকশার ক্ষেত্রে তারতম্য হয়ে থাকে। কারণ, একেক রুমের উচ্চতা একেক রকম। রঙের নানা রকম ব্যবহার রয়েছে। ছোট ফ্ল্যাটের রুমগুলো বড় দেখানোর জন্য কিংবা কম উচ্চতার ক্ষেত্রে রুমগুলোর ক্ষেত্রে পার্থক্য নিয়ে আসতে রং ও নকশার ব্যবহার খুব গুরুত্ব রাখে। তবে প্রথমে দেয়ালের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে সিলিংয়ের রং সামঞ্জস্য নিয়ে আসতে হবে। ভিন্ন ধাঁচের নকশার সঙ্গে আলোর ব্যবহারও বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। তাই লাইটের সংযোজনে রঙের প্রভাব আগে মিলিয়ে নিতে হবে।

আরও পড়ুন:

আলো-ছায়ার খেলা
সিলিংয়ে আলোর ব্যবহারে পুরো ঘর বেশ আকর্ষণীয় হয়ে ওঠে। আলোকসজ্জায় অভিজাত লুক এনে দেবে। আলোর ধরনে আছে ভিন্নতা। কোনোটা সিলিংয়ের দিকটায় কিছুটা ছায়া দিয়ে মেঝে আলোকিত রাখে আবার কোনোটা সিলিং আলোকিত রাখলেও আবছায়ায় ঘেরা থাকো পুরো ঘর। এ ছাড়া চাইলে ঘরে রাখা শখের কোনো পেইন্টিং বা কর্নার শোপিস কিংবা শুধু আয়নাকে আলোময় রাখতে সিলিংয়ে স্পটলাইট ব্যবহার করা যায়। তাই কোন ঘরে কেমন রং ও নকশার সঙ্গে কেমন আলো দরকার, তা পরিকল্পনা করে এগোতে হবে।

রুমভেদে সিলিং সজ্জা
ঘরে প্রতিটি রুমের যেমন ভিন্নতা আছে, তেমনি সিলিংয়েরও রয়েছে রকমভেদ। জিপসাম সিলিং, উডেন সিলিং, প্যারিস প্লাস্টার সিলিং, মেটাল সিলিং, সিন্থেটিক ফাইবার সিলিং ইত্যাদি। তাই রুম অনুযায়ী সিলিংয়ের পছন্দসই নির্বাচন ঘরে এনে দেবে অন্য রকম আবহ। রঙের ক্ষেত্রে শোবার ঘরে নরম আলো দরকার। সে জন্য প্রয়োজন হালকা রং যেমন আকাশি, গোলাপি, সাদা কিংবা নীলাভ। নকশাও বাছাই করতে হবে ছিমছাম। যাতে সিলিংজুড়ে স্নিগ্ধতা বিরাজ করে। জ্যামিতিক নকশার ব্যবহার বেশ জনপ্রিয় হলেও শোবার ঘরে গোলাকৃতির নকশার উডেন সিলিং এবং এর সঙ্গে নরম আলোর ব্যবহার ঘুম ঘুম চোখে এনে দেবে প্রশান্তির ছোঁয়া। আর বসার রুমটা বেশ জাঁকজমকভাবে সাজাতে হবে। অতিথি ঘরে ঢুকেই যেন জমকালো একটা ভাব পায়। সে জন্য সিলিংয়ের নকশায় নানা ধাঁচের কাচের সংযোজন করা যেতে পারে। আর এর সঙ্গে মানানসই আলোকচ্ছটা থাকলেই আকর্ষণীয় দেখাবে। ঘর তাপ ও শব্দ নিরোধক করতে চাইলে ফলস সিলিংয়ে মিনারেল বোর্ড ব্যবহার করা ভালো। খাবার রুমের সিলিংয়ের নকশা ও রঙের ক্ষেত্রে সাদামাটা রাখাই ভালো। এ ক্ষেত্রে জিপসাম বোর্ড ব্যবহার করা যায়। যদিও এটি তাপ বা শব্দ নিরোধক নয়। তবে জিপসাম বোর্ডে সিলিং ফ্যান ব্যবহার করা যায়। ফলে খাবার সময় গরমে আরাম দেবে।

 

শিশুদের রুমের সিলিং সাজে আনা যায় নানা রকম ভিন্নতা। প্রজাপতি, সূর্য, ফুল বা পিয়ানো আকৃতির সিলিং তৈরি করে মানানসই রঙে রাঙিয়ে ইচ্ছেমতো আলো ব্যবহার করা যায়। বাথরুমে সাধারণত কম জায়গা থাকে। ভেজাও থাকে। তবু গোসলকে উপভোগ্য করে তুলতে সঠিক সিলিং ও আলোর ব্যবহার করতে হবে। তাই এখানে ফলস সিলিংয়ে কাচ ব্যবহার করা যায়। আর নকশার ভাঁজে ভাঁজে আলোর ব্যবস্থা করলে পানির সঙ্গে আলোর খেলায় এক অদ্ভুত ভালোলাগার পরিবেশ তৈরি হবে। রান্নাঘরে  ড্রপ সিলিং না করা ভালো অর্থাৎ যেটি মূল সিলিংয়ের পুরোটা জুড়ে থাকে। এটি বাণিজ্যিক ভবনগুলোতেই বেশি মানায়। এ ছাড়া সিলিংয়ের ভাঁজে ভাঁজে নকশাদার কাচের ব্যবহারে আভিজাত্যের ছোঁয়া এনে দেয়। আর ফলস সিলিং বিভিন্ন ধরনের লাইট ব্যবহারে ঘরে যেমন চমৎকার আবহ নিয়ে আসবে, তেমনি বেশ নান্দনিক দেখায়।

সিলিংয়ে সতর্কতা

ফলস সিলিং মূলত ব্যক্তিগত পছন্দের আলোকে সব ঘরেই করা যায়। তবে কিচেনে ব্যবহার না করাই ভালো। কারণ, এতে কাঠ এবং বিদ্যুতের ব্যবহার বেশি থাকে। তাই আগুনের সংস্পর্শে এলে দুর্ঘটনার আশঙ্কা থাকে।

ফলস সিলিং মূল সিলিং থেকে বড়জোর দেড় ফুট নিচে নামাতে পারবে, এর বেশি নয়। কারণ, বর্তমানে ফ্ল্যাটগুলোর ফ্লোর থেকে সিলিংয়ের উচ্চতা সাধারণত সাড়ে ৯ থেকে ১০ ফুট। ছোট ঘর হলে আরও ওপরে করা ভালো।

নিয়মিত পরিষ্কার করতে হবে। তা না হলে বাহ্যিক সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যায়।
ভালো মানের রং ব্যবহার করতে হবে।
দুর্ঘটনা এড়াতে দক্ষ শ্রমিক দিয়ে ফলস সিলিং করাতে হবে।
মেরামতের প্রয়োজন হলে অবহেলায় না রেখে দ্রুত সেরে নিতে হবে।

ছবি: সংগৃহীত

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

3 × 4 =