স্মার্টফোন কেনার টিপস

করেছে Sabiha Zaman

সাবিহা জামান: বাজারে প্রায় প্রতিদিন বিভিন্ন ব্র্যান্ডের নতুন স্মার্টফোন আসে। এদের মধ্য থেকে নিজের প্রয়োজন মতো স্মার্টফোন কেনা কিন্তু সহজ কথা নয়। স্মার্টফোন কেনার আগে কয়েকটি বিষয় বিবেচনা করতে হবে। এগুলো না দেখতফোন কেনা বোকামী এই স্মার্ট যুগে। 

ডিজাইন

স্মার্টফোন কেনার ক্ষেত্রে ডিজাইন অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। সব সময় হাল ফ্যাশানের সাথে যায় আর টেকসই হয় এমন ফোন বাছাই করো। নিজের ব্যক্তিগত চাহিদা এবং রুচি অনুযায়ী ডিজাইন পছন্দ করাই ভালো। 

ডিসপ্লে

একটি ভালো মানের স্মার্টফোনের সাথে ভালো ডিসপ্লে কোয়ালিটির বিষয়টি বিশেষ ভাবে গুরুত্ব দিতে হবে। বর্তমান সময়ে বেশির ভাগ ফোনের ডিসপ্লে বড়। তবে অনেকেই অতিরিক্ত বড় ডিসপ্লের ফোন ব্যবহার করতে চায় না। তাই স্মার্টফোন কেনার সময় নিজেস্ব রুচি ও চাহিদার উপর নির্ভর করো। সবচাইতেভালো রেজ্যুলেশনের ডিসপ্লে কেনার জন্য ফোরকে রেজ্যুলেশনের ডিসপ্লেও ব্যবহার করাই ভালো। হয়ে থাকে। 

ক্যামেরা

স্মার্টফোনের এযুগে ভালো ক্যামেরা না হলেও যলে যডি ফনে ভালো ক্যামেরা থাকে। হাল আমলে স্মার্টফোনে অনেক শক্তিশালী ক্যামেরা ব্যবহার  হচ্ছে। ক্যামেরা দিয়ে তুলা ছবি কতটা ভালো বা খারাপ হবে তা অনেকাংশেই নির্ভর করে অ্যাপারচার, সেন্সর, লেন্স ইত্যাদির উপর। স্মার্টফোন দিয়ে বর্তমানে অনেকেই ভিডিও স্যুট করছেন তার কারণ ফুল এইচডি বা ৪কে রেজুলেশনেও ভিডিও করা যায় ফোণ দিয়েই। স্মার্টফোন কেনার সময় ভালো ক্যামেরা কোয়ালিটির বিষয়টি লক্ষ্য রাখবে। 

প্রসেসর

প্রসেসর যত বেশি শক্তিশালী হবে এটি তত দ্রুত কাজ করতে সক্ষম হবে। একটি প্রসেসরের পারফরম্যান্স নির্ভর করে এতে থাকা ক্লক স্পিড, কোর সংখ্যা সহ আরো বেশ কয়েকটি বিষয়ের উপর। বর্তমানে ব্যবহারকারী বিচারে মিডিয়াটেক এগিয়ে রয়েছে। তবে পারফরমেন্স বিচারে কিন্ত এগিয়ে কোয়ালকমের স্ন্যাপড্রাগন।

 র‍্যাম

স্মার্টফোনে র‍্যাম যত বেশি স্মার্ট ফোন ত্তটাই ভালোভাবে কাজ করবে। এজন্য বেশি র‍্যামের ফোন কেনাই ভালো এতে করে ফোন স্লো হয়ে যাওয়ার সম্ভবনা কমে যায়।  র‍্যাম বেশি থাকলে ব্যাকগ্রাউন্ডেও অনেকগুলো অ্যাপ একসাথে রান করাতে পারবে। 

আপারেটিং সিস্টেম

অপারেটিং সিস্টেম হলো সেই সফটওয়্যার যার সাথে আমরা প্রতিদিনই ইন্টারঅ্যাক্ট করে থাকি। স্মার্টফোনের অপারেটিং সিস্টেম মূলত কম্পিউটারের অপারেটিং সিস্টেমের মতোই। বর্তমানে স্মার্টফোনে ব্যবহৃত গুগলের অ্যান্ড্রয়েড ওএস এবং অ্যাপলের আইওএসও দুটিই জনপ্রিয়। সবসময় লেটেস্ট ভার্সনের  অপারেটিং সিস্টেমের ফোন কেনাই ভালো এতে সময়ের সাথে থাকা যায়। আর ব্যবহার করাও বেশি সহজ হয়। 

ব্যাটারি

নানান কাজে পদিনের বেশ বড় একটি সময় আমরা ফোনে ব্যয় করি। তাই ব্যাটারি লাইফ খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয় স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে। বর্তমানে ৩ থেকে ত৬  হাজার মিলিএম্পিয়ারের স্মার্টফোন রয়েছে।  কিনবেন। হেভি ইউজের জন্য ৪ হাজার মিলিএম্পিয়ার বা এর চাইতে বেশি মিলিএম্পিয়ারেরস্ফোন নেওয়াই ভালো। 

প্রতিবছর স্মার্টফোন কেনা সবার পক্ষে সম্ভব নয়। তাই যখন বিষয় ফোন থাকতে হবে যুগের সাথে তাল মিলিয়ে আপডেট। প্রয়োজনীয় ফিচারের সাথে বেছে নিতে হবে ভালো ব্র্যান্ডের  একটু ভালো মানের স্মার্টফোন। 

ছবি: সংগৃহীত 

০ মন্তব্য করো
0

You may also like

তোমার মন্তব্য লেখো

4 + twenty =